প্রায় চার দিনেরও বেশি সময় কেটে গেছে। নাগরিকত্ব সংশোধনী আইন নিয়ে সমর্থক ও বিরোধীদের সংঘর্ষে অগ্নিগর্ভ পরিস্থিতি রাজধানীর। দুপক্ষের সংঘর্ষে প্রাণ হারিয়েছেন ৩৪ জন। শতাধিক মানুষ একাধিক হাসপাতালে মৃত্যুর সঙ্গে লড়ছেন। আগুন জ্বলেছে রাজধানীর বিস্তীর্ণ এলাকা জুড়ে। লুঠপাট হয়েছে একের পর এক দোকানে। স্বাভাবিক ছন্দ থেকে অনেকটাই দূরে চলে গেছে রাজধানীর জীবনযাত্রা। এই অবস্থায় বৃহস্পতিবার সুদূর বেঙ্গালুরু থেকে দিল্লির হিংসা নিয়ে মন্তব্য করেলন প্রতিরক্ষামন্ত্রী রাজনাথ সিং। তিনি বলেন স্বাভাবিক ছন্দে ফিরছে দিল্লি। 

আরও পড়ুনঃ এখনি এফআইআর নয় কপিল-অনুরাগদের নামে ,তিরস্কারের পরেই দিল্লি পুলিশকে সময় দিল হাইকোর্ট

কেন্দ্রীয় মন্ত্রীর সুরেই এদিন কথা বলেন দিল্লির জয়েন পুলিশ কমিশনার নরেন্দ্র সিং বুন্দেলা। তিনি বলেন বর্তমানে দিল্লির আইনশৃঙ্খলা ও ট্রাফিক ব্যবস্থা প্রায় স্বাভাবিক। স্পর্শকাতর এলাকাগুলিতে টহল দিচ্ছে পুলিশ। চলছে পেট্রোলিং।সব সম্প্রদায়ের মানুষের সঙ্গে কথা বলা কাজ করছে দিল্লি পুলিশ।একাধিক জায়গায় রাস্তা পরিষ্কার করা হয়েছে। এদিন সকাল থেকেই বাজারগুলি খুলতে আরম্ভ করেছে। সেখানে ভিড় রয়েছে যথেষ্ট। তবে  একাধিক মানুষকে এক জায়গায় জটলা বাঁধতে নিষেধ করা হয়েছে পুলিশের পক্ষ থেকে। 

 

দিল্লিতে হিংসা রুখতে পুলিশ প্রথম দিনে কোনও পদক্ষেপ নেয়নি। রবিবার থেকে দফায় দফায় যখন অশান্তির কালো মেঘে ঢেকে গিয়েছিল উত্তর পূর্ব দিল্লির বিস্তীর্ণ এলাকা, তখন দিল্লি পুলিশ নীরব দর্শকের ভূমিকা গ্রহণ করেছিল বলে অভিযোগ  স্থানীয়দের। স্থানীয় আদালতও পুলিশের ভূমিকা নিয়ে প্রশ্ন তুলেছে। এই অবস্থায় দাঁড়িয়ে দিল্লি পুলিশের তরফ থেকে জানান হয়েছে  সাম্প্রতিক হিংসা নিয়ে ১৮টি এফআইআর দায়ের করা হয়েছে। হিংসায় জড়িত সন্দেহে এখনও পর্যন্ত ১০৬ জনকে গ্রেফতার করা হয়েছে।