গোটা বিশ্বের সঙ্গে মহামারির সঙ্গে লড়াই করেছে ভারত। আর এই লড়াইয়ের অন্যতম হাতিয়ারই হল মাস্ক। কিন্তু এই পরিস্থিতিতে দাঁড়িয়ে সংক্রমণ রুখেতে এক অন্যধরনের নিদান দিলেন হিমাচল প্রদেশের বিধানসভার স্পিকার বিপিন সিং পারমার। বিধানসভার অধিবেশন চলাকালীন তিনি বলেন, চিৎকার করে কথা বললে করোনাভাইরাস ছড়িয়ে পড়তে পারে। পাশাপাশি অধিবেশনে উপস্থিত বিধায়কদের করোনাভাইরাস সংক্রান্ত স্বাস্থ্যবিধি কঠোরভাবে মেনে চলার পরামর্শ দিয়েছেন তিনি। 

সোমবারই বিজেপি বিধায়ক করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছেন। তিনি জানিয়েছেন সোমবার সন্ধ্যা তাঁর কোভিড পরীক্ষা করা হয়। তখনই জানা যায় তিনি পজেটিভি। তবে বিধায়ক জানিয়েছেন বিধানসভার অধিবেশনে অংশ নিলেও তিনি নিরাপদ শারীরিক দূরত্ব বজায় রেখেছিলেন। সোমবার হিমাচল বিধানসভার অধিবেশেন যথেষ্ট হৈচৈ হয়েছিল।  

মঙ্গলবার ছিল অধিবেশনের দ্বিতীয় দিন। আর এদিনই বিজেপি বিধায়েকের আক্রান্ত হওয়ার কথা অধিবেশনে উপস্থিতি বাকি সকল বিধায়ক সাবধান করে দেন স্পিকার। তিনি বলেন স্ট্যান্ডার্ড অপারেটিং পদ্ধতি অনুসারে উচ্চস্বরে কথা বললে করোনার জীবাণু ছড়িয়ে পড়ার প্রভূত আশঙ্কা থেকে যায়।  যার থেকে সংক্রমণ হতে পারে। তাই তিনি আস্তে-ধীর গলায় কথা বলার পরামর্শ দিয়েছেন বিধায়কদের। এই মন্তব্যের পরই সভায় উপস্থিত বিধায়করা হাসিতে ফেটে পড়েন। কারণ সোমবারই বিরোধী বিধায়করা বিধায়সভায় প্রবল চিকিৎকার চেঁচামেচি করেছিলেন। 

মহামারিতে ত্রস্ত গোটা বিশ্ব, তখন করোনাভাইরাস জয়ের উৎসবে সামিল জিংপিং

মস্কোর বৈঠেকের আগেই লাদাখ নিয়ে আশঙ্কার কালো মেঘ দেখছেন বিদেশ মন্ত্রী, সীমান্তে মোয়াতেন ফাইটার জেট ...

করোনা বিশ্বে গড় আক্রান্তের তালিকায় 'স্বস্তিজনক' স্থানে ভারত, তথ্য দিয়ে জানাল স্বাস্থ্য মন্ত্রক

অন্যদিকে বিজেপির দুনের বিধায়ক করোনা আক্রান্ত ছিলেন। সুস্থ হয়ে এদিন তিনি সভায় যোগদিলে তাঁকে স্বাগত জানিয়েছেন স্পিকার। এই রাজ্যের এক মন্ত্রী ও দুই বিধায়ক এখনও করোনাভাইরাসে আক্রান্ত রয়েছে। 
"