দোষী সাব্যস্ত হলেন প্রখ্য়াত জনস্বার্থ মামলার আইনজীবী তথা 'টিম আন্না'-র সদস্য প্রশান্ত ভূষণ। শুক্রবার সর্বোচ্চ আদালত ও প্রধান বিচারপতি এস এ বোবদে এবং তার পূর্বসূরিদের সমালোচনা করে টুইটের করার জন্য তাঁকে আদালত অবমাননার অপরাধে দোষী সাব্যস্ত করল বিচারপতি অরুণ মিশ্র, বিআর গাওয়াই, এবং কৃষ্ণ মুরারীর বেঞ্চ। তবে তাঁর শাস্তি এখনও নির্ধারিত হয়নি। এই বিষয়ে ২০ অগাস্ট ফের শুনানি হবে।

তবে শীর্ষ আদালত এই মামলায় অন্য অভিযুক্ত 'টুইটার ইন্ডিয়া'-কে সম্পূর্ণ দোষমুক্ত হিসাবে ঘোষণা করেছে। তিন বিচারকের বেঞ্চ বলেছে, সুপ্রিম কোর্ট প্রশান্ত ভূষণের করা টুইট নিয়ে আপত্তি জানানোর সঙ্গে সঙ্গে টুইটার সেই টুইটগুলি সরিয়ে নিয়েছে। তাই 'টুইটার ইন্ডিয়া'র কোনও আদালতের বিরোধী অভিপ্রায় রয়েছে বলে মনে করছেন না তাঁরা।

এই ঘটনার সূত্রপাত হয়েছিল গত ২৭ জুন। ওই দিন প্রশান্ত ভূষণ একটি টুইট করে বলেছিলেন, শেষ চার ভারতের প্রধান বিচারপতি শেষ ছয় বছর ধরে অঘোষিত 'জরুরি অবস্থা' চলাকালীন 'গণতন্ত্রের ধ্বংসে' ভূমিকা নিয়েছেন। দুদিন পর, ২৯ জুন ফের একটি টুইটে তিনি ববর্তমান প্রধান বিচারপতি এস এ বোবদের বিরুদ্ধে নাগরিকদের বিচারে পাওয়ার অধিকার কেড়ে নেওয়ার অভিযোগ করেছিলেন। তিনি বলেছিলেন, 'শীর্ষ আদালতে লকডাউন জারি প্রধান বিচারপতি নাগপুরে বাইক চালাচ্ছেন'।

এরপরই শীর্ষ আদালতের বিরুদ্ধে অবমাননাকর মন্তব্য করার অভিযোগ এনে সুপ্রিম কোর্ট প্রশান্ত ভূষণের বিরুদ্ধে একটি স্বতঃপ্রণোদিত মামলা দায়ের করেছিল। আদালতের পক্ষ থেকে নোটিশ পাঠানো হয়েছিল এই বর্ষীয়ান আইনজীবীকে। যার জবাবে তিনি বলেছিলেন, প্রধান বিচারপতির সমালোচনা করা মানে সুপ্রিম কোর্টের মর্যাদাহানি করা নয়। তাঁর বিরুদ্ধে 'ত্রুটিপূর্ণ অবমাননার মামলা' দায়ের করা হয়েছে দাবি করে প্রশান্ত ভূষণ শীর্ষ আদালতের সেক্রেটারি জেনারেলের বিরুদ্ধেই 'অসাংবিধানিক ও অবৈধ' কাজ করার অভিযোগ করেছিলেন।