টুইটার, আমজনতার সঙ্গে সুষমা স্বরাজের যোগাযোগের সহজতম মাধ্যম ছিল এই সোশ্যাল মিডিয়া। ডিজিটাল মাধ্যমকে কাজে লাগিয়ে কীভাবে দ্রুত আমজনতার সমস্যার সমাধান করা যায়, বিদেশমন্ত্রী হিসেবে তা দেখিয়ে দিয়েছিলেন সুষমা। আবার এই টুইটারেই তাঁর নিন্দুক বা প্রতিপক্ষকে চোখা চোখা জবাবে চুপ করিয়ে দিয়েছেন সুষমা স্বরাজ। তা তিনি পাকিস্তানের দাপুটে মন্ত্রী হোন, অথবা তার মৃত্যু কামনা করা ভারতীয় যুবক। 

হ্যাঁ, যে টুইটারের মাধ্যমে তিনি সাধারণ মানুষের পাশে দাঁড়াতেন, কয়েকদিন আগে সেই টুইটারেই তাঁকে কুরুচিকর আক্রমণ করে এক যুবক। ঘটনাটি গত ২১ জুলাইয়ের। দিল্লির বিজেপি বিধায়ক মাঙ্গে রামের প্রয়াণের পরে শোকবার্তা জানিয়ে টুইট করেছিলেন সুষমা। এই টুইটের জবাবেই ইরফান খান নামে এক ব্যক্তি লেখে, 'শীলা দীক্ষিতের মতো আপনার কথাও একদিন আমাদের খুব মনে পড়বে আম্মা!' প্রসঙ্গত দিল্লির প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রী এবং কংগ্রেস নেত্রী শীলা দীক্ষিতের কয়েকদিন আগেই মৃত্যু হয়। ফলে ওই টুইটের উদ্দেশ্য অত্যন্ত কুরুচিকর ছিল। 

আরও পড়ুন- টুইটারে তাঁর মৃত্যুকামনা, উপযুক্ত জবাবে শায়েস্তা করলেন সুষমা স্বরাজ

আরও পড়ুন- 'এক টাকা নিয়ে যান', মৃত্যুর ঠিক আগে কুলভূষণ মামলার আইনজীবীকে ফোন সুষমার

ইরফান খান নামে ওই ব্যক্তিকে অবশ্য কিছুক্ষণের মধ্যেই উপযুক্ত জবাব দিয়েছিলেন সুষমা স্বরাজ। ইরফান খানকে উদ্দেশ করে তিনি লেখেন, 'এমন ভাবনার জন্য আপনাকে অগ্রিম ধন্যবাদ জানাই।' অন্যান্য টুইটার ব্যবহারকারীরাও ওই ব্যক্তির তীব্র সমালোচনা করেন। সুষমা স্বরাজ সংখ্যালঘু-সহ সাধারণ নাগরিকদের কীভাবে সাহায্য করেন, সেকথাই মনে করিয়ে দেওয়া হয়েছিল ওই ব্যক্তিকে। 

কাকতালীয় হলেও এই ঘটনার সপ্তাহ দু' য়েক পরেই মৃত্যু হল সুষমার। কিন্তু ওই ঘটনা বুঝিয়ে দিয়েছিল, বিদেশমন্ত্রী না থাকলেও টুইটারে তাঁর দক্ষতায় এতটুকু মরচে পড়েনি।