ভারতীয় স্বাধীনতা আন্দোলনের বীজ বপনের তিনিই ছিলেন কাণ্ডারি। তিনি ছিলেন প্রথম ভারতীয়, যিনি ব্রিটিশ পার্লামেন্টের সদস্য হিসেবে নির্বাচিত হয়েছিলেন। প্রথম থেকেই ভারতবর্ষের দাবি ব্রিটিশ শাসকের কাছে পৌঁছে দেওয়ার উদ্যোগ নিয়েছিলেন যিনি, তিনি হলেন দাদাভাই নওরোজি। একের পর এক নয়া পদক্ষেপে স্বাধীনতার পথ আরও প্রসারিত করে দিয়েছিলেন দাদাভাই নওরোজি।

 আজ তাঁর ১৯৪তম জন্মদিবস। এই পার্সি পন্ডিত, ব্যবসায়ী তথা রাজনীতিকের জন্ম হয়েছিল ১৮২৫ সালের ৪ সেপ্টেম্বর, তখনকার বম্বে শহরে। ছোট থেকেই তাঁর গুজরাতি ভাষার প্রতি টান ছিল। পরবর্তীকালে গুজরাতি ভাষা বিভাগেই অধ্যাপনা করেন লন্ডন কলেজে। 

আরও পড়ুনঃ ১১৪তম জন্মবার্ষিকী 'হকির জাদুকরের', জেনে নিন তাঁর সম্পর্কে অজানা তথ্য

দীর্ঘদিন ইংল্যান্ডে থাকার সুবাদে সেখানকার বহু মানুষের সঙ্গে তাঁর পরিচিতি ঘটেছিল। ব্রিটিশ রাজনৈতিক মহলেও ক্রমে পরিচিতি বাড়ে। এই পরিচিতিকে ভারতীয়দের স্বার্থে কাজে লাগিয়েছিলেন তিনি। বন্ধু মহলে তিনি তুলে ধরতে শুরু করেন ভারতবর্ষে কী চলছে তার অজানা কাহিনি। 

রাজনৈতিক মতবাদের দিক থেকে তিনি ছিলেন সোশ্যালিস্ট। সদস্য ছিলেন দ্বিতীয় আন্তর্জাতিকেরও। ১৮৯২ সালে তিনি লিবারাল পার্টির হয়ে ব্রিটিশ পার্লামেন্টের সদস্য হন। তিন বছর পার্লামেন্ট সদস্য হিসেবে থাকার সময়ই তিনি ভারতীয়দের সিভিল সার্ভিস পরীক্ষায় বসতে দেওয়ার দাবি তুলেছিলেন। লন্ডন ইন্ডিয়ান সোসাইটিও তাঁর হাতেই প্রতিষ্ঠা হয়েছিল। 

ভারতীয়দের বিরুদ্ধে ব্রিটিশ অপশাসনের স্বরূপ তুলে ধরেছিলেন 'পভার্টি অ্যান্ড আন-ব্রিটিশ রুল ইন ইন্ডিয়া' বইতে। এই বইতেই তিনি তাঁর 'ড্রেন ওয়েলথ' তত্ত্ব ব্যাখ্যা করেছিলেন। ব্রিটিশরা ভারত থেকে সম্প্দ লুন্ঠন করে নিয়ে ফলেই কীভাবে ভারতীয়রা ক্রমে দারিদ্রে ডুবে যাচ্ছে তা প্রকাশ্যে আসতে সাড়া পড়ে গিয়েছিল। 

আরও পড়ুনঃ ২৪ অগাস্ট, তিলোত্তমার জন্ম তারিখ নিয়ে রয়েছে বিতর্ক

১৮৬৯ সালে পাকাপাকিভাবে লন্ডন ছেড়ে দেশে ফিরে আসেন দাদাভাই। ভারতে ফিরেই তিনি স্বাধীনতা আন্দোলনে যোগ দেন। ১৮৮৫ সালে ভারতীয় জাতীয় কংগ্রেসের সর্বপ্রথম অধিবেশনে যোগ দিয়েছিলেন তিনি। পরের বছরই কলকাতা অধিবেশনে তিনি জাতীয় কংগ্রেসের সভাপতি নির্বাচিত হন। তিনিই প্রথম ভারতের স্বায়ত্তশাসনের দাবি তুলেছিলেন।