আবারও কোভিড কেয়ার সেন্টারের অব্যবস্থার ছবি ধরা পড়ল সোশ্যাল মিডিয়ায়। এবার ত্রিপুরার আগরতলার কোভিড কেয়ার সেন্টারের অব্যবস্থার ছবি সোশ্যাল মিডিয়া পোস্ট করে নিজের নিরাপত্তাহীনতার কথা প্রকাশ করেন এক ভাবী মা। 

আগরতলার ভগৎ সিংহ যুব আবাস কোভিড কেয়ার সেন্টারের নোংরা পরিবেশের ছবিটি ফেসবুকের তুলে ধরে লাইভ করেছেন এক গর্ভাবতী মহিলা। সাত মাসের অন্তঃসত্ত্বা ওই মহিলা করোনা আক্রান্ত হওয়ায় ওই কোভিড কেয়ার সেন্টারে ছিলেন। কিন্তু সেখানকার পরিবেশ একটাই নোংরা আর অসুরক্ষিত যে তিনি তাঁর ও গর্ভস্থ সন্তানের স্বাস্থ্য নিয়ে উদ্বেগ প্রকাশ করেছেন। পাশাপাশি প্রশাসনের কাছে করোনাভাইরাসে আক্রান্ত রোগীদের জন্য পরিষ্কার পরিচ্ছন্ন কোভিড কেয়ার সেন্টারের দাবি জানিয়েছেন ওই মহিলা। 

সোশ্যাল মিডিয়ায় লাইভ হওয়া কোভিড কেয়ার সেন্টারের কথা মেনে নিয়েছে ত্রিপুরা স্বাস্থ্য দফতরের এক আধিকারিক। তিনি অবশ্য সাফাই কর্মীদের গাফিলতির দিকেই অভিযোগের আঙুল তুলেছেন। 

সংঘর্ষ এড়াতে পূর্ব লাদাখে পেট্রোলিং প্রোটোকল নিয়ে কথা, প্যাংগং-এর নীল জলে হারিয়ে যাচ্ছে সমাধান সূত্...

শুক্রবার গর্ভাবতী মহিলা অসুস্থ হলে তাঁকে আইজিএম হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। সেখানেই করোনা পরীক্ষা হয়। মহিলার রিপোর্ট পজেটিভ হওয়ায় ভগৎসিং যুব আবাস কেন্দ্রে পাঠান হয়। মহিলার অভিযোগ তাঁকে প্রায় ৪ ঘণ্টা সেন্টারের বাইরে অ্যাম্বুলেন্সেই বসিয়ে রাখা হয়। সেন্টারের বিভিন্ন অংশের ছবি তুলে তিনি তা পোস্ট করেন। পাশাপাশি বলেন সেন্টারটি নরকে পরিণত হয়েছে। করোনা আক্রান্তদের ওই নোংরা পরিবেশে থাকতে হচ্ছে। পাশাপাশি প্রশাসনের কাছে অবিলম্বে স্বাস্থ্যকর পরিবেশে করোনা আক্রান্তদের রাখার আর্জি জানিয়েছেন তিনি। যদিও সোশ্যায় মিডিয়ায় লাইভ করার পরই আক্রান্ত মহিলাকে হাসপাতালে স্থানান্তরিত করা হয়েছে। 

করোনার করাল ছায়া বিজেপি শিবিরে, আক্রান্ত একাধিক নেতা , অমিত শাহের আরোগ্য কামনা করলেন রাহুল-মমতা ...

বাটার মাস্ক দিয়ে কোভিডের তরকারি খেতে কেমন লাগল, যোধপুরের হোটেলের খাবার নিয়ে কী বলছে নেটদুনিয়া ...

তবে এখনও ওই হাসপাতালে যাঁরা রয়েছেন তাঁদের দিন কাটছে যথেষ্ট উদ্বেগে। খুব তাড়াতাড়ি সেন্টারটি পরিচ্ছন্ন করতে উদ্যোগ নেওয়া হবে বলেও জানিয়েছেন প্রশাসনের এক কর্তা। অন্যদিকে পিপিই কিট পরে সেন্টারটি দেখতে গিয়েছিলেন রাজ্যের বিজেপি বিধায়ক ও প্রাক্তন স্বাস্থ্য মন্ত্রী সুদীপ রায়বর্মন। তিনি জানিয়েছেন সোশ্যাল মিডিয়ায় মহিলার কান্না দেখে তিনি রীতিমত মর্মাহত। তাই ছুটে এসেছেন অসুস্থদের দেখতে। সেখানে কিছু খাবার ও ফলও বিলি করেন তিনি।