দু দিন পরেও হলেও কংগ্রেস নেত্রী প্রিয়াঙ্কা গান্ধী দাবি মেনে নিলেন উত্তর প্রদেশের মুখ্য়মন্ত্রী যোগী আদিত্য নাথ। সোমবার উত্তর প্রদেশে সরকারের পক্ষ থেকে জানান হয়েছে, কংগ্রেস অভিবাসী শ্রমিকদের জন্য যে ১ হাজার বাস চালাতে চাইছে তাতে অনুমতি দেওয়া হয়েছে। পাশাপাশি রাজ্য সরকারের পক্ষ থেকে কংগ্রেসে নেত্রীর অফিসে একটি চিঠিও পাঠান হয়েছে। যাখানে বলা হয়েছে প্রিয়াঙ্কার গান্ধীর অভিবাসী শ্রমিকদের জন্য বাস চালানোর দাবি মেনে নেওয়া হয়েছে। পাশাপাশি  বাসগুলির বিস্তারিত বিবরণ চাওয়া হয়েছে।  জানাতে বলা  হয়েছে বাসের চালকের নাম ও বাসের নম্বর। বাসগুলি অভিবাসী শ্রমিকদের পরিবহণ ছাড়া অন্য কোনও কাজে ব্যবহার করা যাবে না বলেও নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। চিঠিটি লিখেছেন মুখ্যমন্ত্রীর দফতের পদস্থ আধিকারিক অশ্বিনী কুমার। 

পাশাপাশি পাল্টা পদক্ষেপও গ্রহণ করা হয়েছে। উত্তর প্রদেশের সরকারের পক্ষ থেকে বাকি রাজ্যগুলির কাছে প্রবাসী শ্রমিকদের বিসদ বিবরণ চাওয়া হয়েছে। কোনও রাজ্যে কত জন উত্তর প্রদেশের শ্রমিক রয়েছে তারও বিস্তারিত জানাতে বলা হয়েছে। অবিলম্বে তাঁদের ঘরে ফেরাতে পাল্টা ১২ হাজার বাসের ব্যবস্থা করা হচ্ছে বলেও জানান হয়েছে যোগী সরকারের পক্ষ থেকে। 
 

গত ১৬ মে আউরিয়ায় পথ দুর্ঘটনায় একসঙ্গে ২৪ জন অভিবাসী শ্রমিকের মৃত্যু হয়েছিলয আহত হয়েছিলেন ৩৪ জন। তারপর থেকে অভিবাসী শ্রমিকদের বাসের দাবিতে সরব হয়েছিলেন প্রিয়াঙ্কা। একাধিকবার যোগী প্রশাসনের কাছে বাসের দাবিও জানিয়েছিলেন তিনি। সেই সময় তিনি বলেছিলেন বর্তমানে রাজনীতির সময় নয়। এখন যেভাবে হোক অসহায় মানুষদের পাশে দাঁড়াতে হবে। তিনি বলেছিলেন হাজার হাজার অভিবাসী মানুষ খাবার না পেয়ে, জল না পেয়ে, মাথা গোঁজার আশ্রয়টুকু হারিয়ে হেঁটে হেঁটেই বাড়ি ফিরছে। অবিলম্বে সেইসব অভিবাসীদের জন্য বাসের  ব্যবস্থা করার আর্জি জানিয়েছিলেন তিনি। পাশাপাশি তিনি আরও একটা ট্যুইটে বলেছিলেন, দেশের হাজার হাজার নির্মাতা এই প্রখর রোদে হাঁটছেন। কিন্তু কংগ্রেসের একাধিক বাস সীমানায় অপেক্ষা করছে। প্রিয়াঙ্কা সেই সব অভিবাসীদের সাহায্য করার একটা সুযোগ করে দেওয়ারও আবেদন জানিয়েছিলেন। উত্তর প্রদেশের সীমানায় যে বাস দাঁড়িয়ে রয়েছে তার একটি ভিডিও পোস্ট করেছিলেন তিনি। এদিন সেই বাস চালানোর ছাড়পত্র পেয়ে কিছুটা হলেও স্বস্তি পেয়েছে কংগ্রেস।  

আরও পড়ুনঃ এক জন আক্রান্ত হওয়ায় কোয়ারেন্টাইনে যেতে হল একাধিক কর্মীকে, রাষ্ট্রপতিভাবনে করোনার হামলা .

আরও পড়ুনঃ করোনাভাইরাসও চিড় ধরাতে পারেনি হিন্দু-মুসলিমের বন্ধুতে, ভাইরাল দুই পরিযায়ী শ্রমিকের ছবি ...

এদিনও সকালে দুটি পৃথক দুর্ঘটনায় ৩০ জন অভিবাসী শ্রমিক আহত হয়েছেন। এই ঘটনা নিয়েও যোগী আদিত্যনাথ কংগ্রেসের বিরুদ্ধে অভিযোগের আঙুল তুলতে ছাড়েননি। তিনি বলেছিলেন কংগ্রেস শাসিত রাজ্য থেকেই পিরছে অভিবাসী শ্রমিকরা।  তাই সেই দায় কিছুতেই এড়াতে পারে না কংগ্রেস। কারণ দুর্ঘটনাগ্রস্ত একটি ট্রাক রাজস্থানের অন্যটি পঞ্জাবের। পাশাপাশি স্থানীয় প্রশাসন জানিয়েছিল অভিবাসীদের পর্যাপ্ত ট্রেন ও বাসেরও ব্যবস্থা করা হয়েছে। তবে সে বিতর্কে আপাতত ইতি পড়েছে যোগী সরকার কংগ্রেসকে বাস চালানোর অনুমতি দেওয়ায়।