অফিস-কাছারি বা অন্য কোনও সংস্থায় উপস্থিতি সুনিশ্চিত করতে বায়োমেনট্রিক-এর ব্যবস্থা করা হয়, তাতে আঙুলের ছাপ দিলেই পড়ে যাবে হাজিরা। তবে এববার স্কুল পড়ুয়াদের জন্যও এমন হাজিরা পদ্ধতির ব্যবস্থা করতে চলেছে উত্তরপ্রদেশ সরকার। 

এর আগে উত্তরপ্রদেশে যোগী আদিত্যনাথের সরকারের তরফে সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছিল যে সব স্কুল পড়ুয়াদের জন্য যোগব্যায়াম বাধ্যতামুলক করে দেওয়া হয়েছিল সরকার পরিচালিত প্রাথমিক স্কুলগুলিতে। আর এবার সরকার নিয়েছে এক নয়া সিদ্ধান্ত। রাজ্যের প্রায় দেড় লক্ষ্য প্রাথমিক বিদ্যালয়ে পাঠরত প্রায় দেড় কোটি শিশুর হাজিরা সুনিশ্চিত করতে এবার বায়োমেট্রিক হাজিরা পদ্ধতি শুরু  করার পথে সরকার।  

লক্ষ্য সুস্থ ভারত গড়ে তোলা, জাতীয় ক্রীড়া দিবসে ফিট ইন্ডিয়া অভিযানের সূচনায় মোদী

দূষণমুক্ত ভারত গড়তে তৎপর মোদী সরকার, ২ অক্টোবর থেকে নিষিদ্ধ এইসব প্লাস্টিক সামগ্রী

রাজ্যের প্রাথমিক শিক্ষামন্ত্রী সতীশ দ্বিবেদী এদিন ঘোষণা করেন যে, এই পদ্ধতির সাহায্যে এবার থেকে স্কুলে এসে মেশিনে আঙুলের ছাপ দিয়েই হাজিরা দিতে পারবে ছাত্র-ছাত্রীরা। সকাল ৮ টা থেকে দুপুর ১টার মধ্যে এই আঙুলের ছাপ দিতে হবে বলেও জানান তিনি। 

ভগবান শ্রীকৃষ্ণের কায়দায় বাঁশি বাজালেই গরু বেশি দুধ দেয়, দাবি বিজেপি বিধায়কের

খাগড়াগড় বিস্ফোরণ কাণ্ডে দোষ স্বীকার করল ১৯ জন, সাজা ঘোষণা ৩০ অগাস্ট

শুধু তাই নয়, রাজ্যের প্রাথমিক শিক্ষামন্ত্রী এই বায়োমেট্রিক ব্যবস্থার অনেক ভাল দিক রয়েছে, যেমন এর সাহায্যে একদিকে স্কুল ছুট কতজন তাঁদের একটা হিসাব পাওয়া যাবে এবং সেইমতো চেষ্টা করা হবে কীভাবে স্কুলছুটের সংখ্যা কমিয়ে আনা যায়। সেইসঙ্গে স্কুল পড়ুয়াদের ভুয়ো উপস্থিতি আটকাতেও এই বায়োমেট্রিক ব্যবস্থা বিশেষভাবে কার্যকর হবে বলে জানা গিয়েছে। তবে পড়ুয়াদের পাশাপাশি স্কুলের প্রত্যেক স্টাফেরও বায়োমেট্রিক হাজিরা বাধ্যতামূলক করে তোলার চেষ্টাও করা হচ্ছে।