করোনাভাইরাসের দুটি টিকা কোভিশিল্ড আর কোভ্যাক্সিন -- কার্যকর আর নিরাপদ। যেকোনও টিকারও পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া বা বিরুপ প্রতিক্রিয়া দেখা দিতে পারে। করোনাভাইরাসের টিকা নিয়ে আরও একবার আশ্বাসবার্তা দিলেন কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্যমন্ত্রী হর্ষবর্ধন। তিনি আরও বলেন করোনাটিকা নিয়ে কিছু মানুষ রাজনৈতিকভারে উদ্দেশ্যপ্রনোদিতে হয়ে বিভ্রান্তিকর তথ্য ছড়িয়ে দিচ্ছে। যা দেনের গুটিকয়েক মানুষের মধ্যে  ভ্যাকসিন নিয়ে দ্বিধা বাড়িয়ে দিচ্ছে। এটি খুবই দুর্ভাগ্যজনক বলেও দাবি করেছেন তিনি। একই সঙ্গে কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্য মন্ত্রী স্পষ্ট করে দিয়েছেন কোভিড ১৯-এর টিকাই হবে করোনাভাইরাসের কফিনের শেষ পেরেক। 


কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্য মন্ত্রী  বৃহস্পতিবার সাংবাদিকদের মুখোমুখি হয়ে বলেন সরকার চায় না, দ্বিধাগ্রস্থ মানুষরা আতঙ্কিত হয়ে ভ্যাকসিন গ্রহণ করুক। দেশের চিকিৎসকদের মত দেশের সকল নাগরিকদের সুরক্ষার ব্যবস্থা করা হয়েছে বলেও জানিয়েছেন তিনি। তিনি আরও বলেন স্বাস্থ্য মন্ত্রক বেশ কয়েকটি পোস্টার প্রকাশ করবে যা ভ্যাকসিন নিয়ে নাগরিকদের দ্বিধা কাটিয়ে তুলতে সাহায্য করবে। পোস্টারগুলিয় যাতে সঠিকভাবে ব্যবহার করা যায়, আর সঠিকভাবে প্রচারের আহ্বান জানান হয়েছে। টিকা অভিযান খাতে এটি একটি আয়না হিসেবে ব্যবহার করা হবে বলেও জানিয়েছেন তিনি। কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্য মন্ত্রী উদাহরণ হিসেবে তুলে ধরেন পোলিয় টিকার সাফল্যের কথা। 

২৩ জানুয়ারি প্রধানমন্ত্রীর বাংলা ও অসম সফর, পরাক্রম দিবসে ভিক্টোরিয়া মেমোরিয়ালে অনুষ্ঠান ..

সাবধানের মার নেই, ২৫ কিলো সোনা চুরি করতে দিল্লিতে চোরের ভরসা পিপিই কিট ...

কেন্দ্রীয় মন্ত্রী এদিন নিজের কাজের ওপর সন্তোষ প্রকাশ করে বলেন, তিনি  নিশ্চিত যে জানুয়ারি মাসে তিনি ভালো কাজ করেছেন। তিনি বলেন দেশের চিকিৎসক নার্স ও স্বাস্থ্যকর্মীরা  এবং ফ্রন্টলাইন কর্মীরা গাফিলতি ছাড়াই রোগিদের জন্য কাজ করেগেছেন। একই সঙ্গে তিনি চিকিৎসক, বিজ্ঞানী, বিশেষজ্ঞদেরও ধন্যবাদ জানিয়েছেন। বলেছেন, কোভ্যাক্সিন ও কোভিশিল্ড ব্যবহার করা নিরাপদ। যে কোনও টিকারও পার্শ্বপ্রতিক্রায়া থাকতে পারে। তিনি আরও বলেন প্রত্যেকেরও মনে রাখা উচিৎ, যেকোনও ভ্যাক্সিন নেওয়ার পরেই হালকা জ্বর ও শরীরেফোলাভাব দেখা দিতে পারে। এটা ভয়ের কোনও বিষয় নয় বলেও মন্তব্য করেছেন তিনি। চলতি মাসের শুরুতেই কেন্দ্রীয় সরকার টিকাপ্রদান কর্মসূচি শুরু করেছেন। কিন্তু টিকা নিয়ে সমানে উদ্বেগ প্রকাশ করছে বিরোধী রাজনৈতিক দলগুলি। একধার এগিয়ে টিকা ইস্যুতে কংগ্রেস বলেছে, দেশের মানুষকে গিনিপিগের মত ব্যবহার করা বন্ধ করুক সরকার।