তিন মাস ধরে নিরন্তর খোঁজের অবশেষে অবসান হল। অবশেষে খোঁজ মিলল চন্দ্রযান-২-এর ল্যান্ডার বিক্রমের ধ্বংসাবশেষের। মার্কিন মহাকাশ গবেষণা সংস্থা নাসার ছবির সাহায্যে চাঁদের দক্ষিণ মেরু থেকে সেই ধ্বংসাবশেষ খুঁজে বার করলেন চেন্নাইয়ের এক প্রযুক্তিকর্মী। 

চন্দ্রযান-২ দিয়ে চাঁদের অদেখা দক্ষিণ মেরুতে পৌঁছে ইতিহাস গড়তে চেয়েছিল ভারত। কিন্তু ইতিহাস ছোঁয়ার কয়েক মুহুর্ত আগেই শেষ হয়ে যায় সব স্বপ্ন। ল্যান্ডার বিক্রমের সঙ্গে যোগাযোগ ছিন্ন হয়ে যায় ইসরোর। শত চেষ্টার পরেও বিক্রমের খোঁজ পেতে ব্যর্থ হয় ইসরো। জানা যায়, ইসরোর সঙ্গে যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন হওয়ার আগে চন্দ্রযান ২-এর ল্যান্ডারের হার্ড ল্যান্ডিং হয়েছিল চাঁদে। 

তবে ভারতের দ্বিতীয় চাঁদ অভিযানের প্রথম থেকেই এসেছিল বাধা, বিঘ্ন। প্রথমে কথা ছিল চন্দ্রযান -২ মহাকাশে যাবে ১৫ জুলাই। সাংবাদিক সম্মেলনে ইসরোর চেয়ারম্যান কে শিবন জানিয়েছিলেন, ল্যান্ডার বিক্রমের ভূমিকার উপরেই পুরো প্রক্রিয়ার সাফল্য নির্ভর করবে। ইসরোর ইতিহাসে এটিএ এখনও পর্যন্ত সবচেয়ে জটিল প্রযুক্তিগত অপারেশন। একনজরে দেখে নেওয়া যাকে চন্দ্রযান ২ এর চাঁদে পাড়ি থেকে চরম পরিণত পর্যন্ত ক্রম তালিকা-

 

 

১৫ জুলাই, ২০১৯ - ভোর ২.৫১ মিনিটে চাঁদের উদ্দেশ্যে পাড়ি দেওয়ার কথা ছিল চন্দ্রযান ২-এর। কিন্তু শেষ মুহুর্তে প্রযুক্তিগত বিভ্রাটে স্থগিত রাখা হল যাত্রা। 

২২ জুলাই, ২০১৯ -   অন্ধ্রপ্রদেশের শ্রীহরিকোটা থেকে দুপুর ২.৪৩ মিনিটে চাঁদের উদ্দেশ্যে পাড়ি দেয় চন্দ্রযান ২। 

৪ অগস্ট, ২০১৯ - চন্দ্রযান ২ থেকে তোলা পৃথিবীর ছবি প্রকাশ করল ইসরো। 

২০ অগস্ট, ২০১৯ -  চাঁদের কক্ষপথ স্পর্শ করল চন্দ্রযান ২

৭ সেপ্টেম্বর, ২০১৯-  তীরে এস তরী ডুবল। চন্দ্রযান-২ বিক্রম ল্যান্ডার যে সময় চাঁদের মাটিতে নামার কথা সেই সময় অতিক্রান্ত হওয়ার পরও যোগাযোগ করা যায়নি তার সঙ্গে। চাঁদ থেকে মাত্র ২.১ কিলোমিটার দূরত্বে পৌঁছে ছিটকে যায় ল্যান্ডার বিক্রম। 

১৯  সেপ্টেম্বর-  চন্দ্রযান-২ মিশনে চাদের মাটির হার্ড ল্যান্ডিং করেথে বিক্রম ল্যান্ডার, প্রকাশ্যে স্বীকার করল ইসরো।