বৃহস্পতিবার ৭৩ তম স্বাধীনতা দিবসে লাল কেল্লা থেকে জাতির উদ্দেশে ভাষণ দিলেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী। মোদীর ভাষণে উঠে এল নবরূপে ভারত গড়ে তোলার লক্ষ্য। এই প্রসঙ্গে এদিন একাধিক বিষয়ের ওপর আলোকপাত করেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী। তবে এবারের স্বাধীনতা দিবসে দেশের প্রতিরক্ষা বিষয়ে বড়সড় ঘোষণা করলেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী।

দেশের সাধারণ মানুষের সুরক্ষা সুনিশ্চিত করতে এবং সন্ত্রাসবাদের বিরুদ্ধে প্রতিরোধ গড়ে তুলতে তিন সেনাবাহিনীর সমন্বয়ে গড়ে তোলা হবে নতুন পদ, যার নাম চিফ অফ ডিফেন্স স্টাফ বা সিডিএস। সেনাবাহিনী, নৌবাহিনী এবং বায়ুসেনার প্রধান এবং বিশেষ আধিকারিকদের বাছাই করে গড়ে তোলা হবে একটি বিশেষ দল, যার শীর্ষ পদাধিকারই হলেন এই চিফ অফ ডিফেন্স স্টাফ। 

নতুন রূপে ভারত, লালকেল্লা থেকে ২৪ ধাপ পরিকল্পনার ঘোষণা মোদীর

প্রসঙ্গত মার্কিন সেনাবাহিনীতে এই চিফ অফ ডিফেন্স স্টাফ-এর উপস্থিতি রয়েছে। মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের সেনাবাহিনীরও বাছাই করা একাধিক পদস্থ আধিকারিকদের সমন্বয়ে গঠন হওয়া একটি দলের শীর্ষে থাকেন চিফ অফ স্টাফ। তাঁর সঙ্গে  থাকেন  যুগ্ম চিফ অফ স্টাফ। মার্কিন প্রতিরক্ষা বাহিনীতে এই পদের গুরুত্ব অনেক। এই বিশেষ পদাধিকারীর সাহায্যে সরাসরি জনসংযোগের সুযোগ পাওয়া যায়। 

এদিন লালকেল্লা থেকে ভাষণ দেওয়ার সময়ে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী বলেন, ভারতের নিরাপত্তা বাহিনী হল এদেশের গর্ব। সেনাবাহিনীর মধ্যে আরও ভাল সমন্বয়ের জন্য় বিশেষ ঘোষণা করে তিনি জানান,এবার থেকে ভারতে একজন চিফ অব ডিফেন্স স্টাফ থাকবেন, তিনি বলেন নতুন এই পদ সেনাবাহিনীকে আরও শক্তিশালী করে তুলবে। 

প্রসঙ্গত, ১৯৯৯ সালে কার্গিল যুদ্ধের পর দেশের প্রতিরক্ষা ব্যবস্থার খামতি পূরণ করার পর প্রতিরক্ষা বিষয়ক একটি কমিটির তরফে এই চিফ অব ডিফেন্স স্টাফ গড়ে তোলার সুপারিশ করা হয়েছিল। কিন্তু সেইসময়ে নানা কারণে তা কার্যকর হয়নি। তবে ৭৩ তম স্বাধীনতা দিবসে এই বিশেষ পদ গঠনের কথা ঘোষণা করলেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী।