শুধু ধর্ষণ বা গণধর্ষণ বলে এই ঘটনাকে বর্ণনা করা যাবে না। বলা যেতে পারে ধর্ষণের জঘন্য উল্লাস। ইসরাইল-এর পুলিশ জানিয়েছে দক্ষিণের উপকূলীয় শহর ইলাত-এর এক রিসর্টে এক ১৬ বছরের কিশোরী মদ খাইয়ে বেহুশ করে অন্তত ৩০ জন পুরুষ গণধর্ষণ করেছে। গত শুক্রবার পুলিশের কাছে এই বিষয়ে অভিযোগ জানায় নির্যাতিতা। বৃহস্পতিবার পর্যন্ত এই ঘটনায় মাত্র দুইজন-কে গ্রেফতার করা গিয়েছে।

জানা গিয়েছে, মেয়েটি ওই রিসর্টের অতিথি ছিল না। সে আরও কয়েকজনের সঙ্গে সেখানকার বারে মদ্যপান করেছিল। তারপর বাথরুমে যাওয়ার প্রয়োজন অনুভব করায় এক ব্যক্তি তাকে সেখানকার একটি কক্ষে নিয়ে যায়। তারপরই শুরু হয় লাগাতার ধর্ষণ। মেয়েটির এক বন্ধু অভিযোগ করেছে, অতিরিক্ত মদ্যপানের ফলে মেয়েটি বাধা দেওয়ার মতো অবস্থায় ছিল না। ধর্ষকরা তারই সুযোগ নিয়েছে।

ওই পুরুষদের অধিকাংশই একে অপরকে আগে থেকে চিনতেন না পর্যন্ত। ওই অবস্থায় এক কিশোরী মেয়েকে ধর্ষণের সুযোগ পাওয়া যাচ্ছে, এই খবর চাউর হতেই ওই ঘরের বাইরে রীতিমতো ধর্ষকদের লাইন পড়ে গিয়েছিল বলে জানা গিয়েছে। একজন একজন করে ভিতরে ঢুকে তার উপর হামলা চালিয়েছে। এমনকী একজন ধর্ষক ডাক্তার পরিচয় দিয়ে মেয়েটিকে সাহায্য করার ছলে ভিচরে ঢুকেও তার উপর যৌন অত্যাচার চালিয়েছে। অনেকেই ধর্ষণের মুহূর্তের ভিডিও রেকর্ডও করেছে।

এখনও অবধি এই ঘটনায় জড়িত সন্দেহে ২৭ বছর বয়সী দুই যুবককে গ্রেফতার করা হয়েছে। ধর্ষণের ভিডিও ফুটেজের সূত্র ধরেই তাদের সন্ধান মিলেছে বলে জানা গিয়েছে। তাদের দাবি, ওই বিশাল সংখ্যক পুরুষের দল মেয়েটির সম্মতি নিয়েই নাকি তার সঙ্গে যৌনমিলন করেছিল।

এই ঘটনার তীব্র নিন্দা করেছেন ইসরাইলি প্রধানমন্ত্রী বেঞ্জামিন নেতানিয়াহু। টুইট করে তিনি বলেছেন, এই ঘটনা 'মানবতার বিরুদ্ধে অপরাধ'। দোষীদের উপযুক্ত সাজা দেওয়ার কথাও জানিয়েছেন তিনি। প্রতিরক্ষামন্ত্রী বেনি গ্যান্টজ-এর বক্তব্য, এই কাজ যারা করেছে তাদে 'আত্মা ও নৈতিকতা' বলে কিছু নেই।