মাঝে কিছুটা স্বস্তি দিলেও আবার নতুন করে ছড়াচ্ছে করোনাভাইরাস। শনিবার জাতীয় স্বাস্থ্য কমিশনের পেশ হওয়া একটি রিপোর্ট বলছে  চিনে নতুন করে করোনায় আক্রান্ত হয়ে আরও ২৮ জনের মৃত্যু হয়েছে। এখনও পর্যন্ত করোনায় আক্রান্ত হয়ে  চিনে মৃত্যের সংখ্যা ৩০৭০-এ পৌঁছে গেছে। অন্যদিকে হুবেই প্রদেশে ছড়াচ্ছে করোনায় ভয়াবহ প্রকোপ। পরপর তিন দিনের হিসেব অনুযায়ী ওই প্রদেশে করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন নতুন করে ৯৯ জন। প্রত্যেকেরই চিকিৎসা চলছে। 

আরও পড়ুনঃ করোনাভাইরাস LIVE Updates: থাবা বসালো পোপের দেশেও, বন্ধ ভুটানের দরজা

সেন্ট্রাল প্রভিন্সেও আবার নতুন করে করোনাভাইরাসে আক্রান্তের হসিদ পাওয়া যাচ্ছে। এখনও পর্যন্ত নতুন করে ২৫ জন আক্রান্ত হয়েছে করোনায়। যা উদ্বেগ বাড়িছে স্থানীয়দের মধ্যে। আতঙ্ক এতটাই বেড়েছে রীতিমত শুনশান পথঘাট। খুব প্রয়োজন ছাড়া কেউই আর বাড়ির বাইরে বার হচ্ছেন না। প্রবল সতর্কতা অবলম্ব করায় জানুয়ারির শেষ থেকে হুবেই প্রদেশে করোনার প্রকোপ কমেছিল। কিন্তু গত তিন দিনে আবারও বাড়ছে আক্রান্তের সংখ্যা। যা চিন্তায় ফেলে দিয়েছে স্থানীয় প্রশাসনকে। তবে করোনার সংক্রমণ রুখতে সতর্ক রয়েছে প্রশাসন। ২৪ ঘণ্টা নজরদারী চালান হচ্ছে  বলেই জানিয়েছেন মেডিক্যাল আধিকারিকরা। বর্তমানে বিদেশ থেকে সংক্রমিত হয়ে অনেকেই দেশে ফিরছেন। সেখান থেকে নতুন করে করোনায় সংক্রমণ ছড়াচ্ছে কিনা তাও খতিয়ে দেখা হচ্ছে। 

আরও পড়ুনঃ ইয়েস ব্যাঙ্কের গ্রাহকদের উদ্বেগ থেকে স্টেট ব্যাঙ্কের ঘোষণা, দেখুন ১০টি তথ্য

গোটা বিশ্বেই করোনাভাইরাস মহামারির আকার নিয়েছে। প্রায় ৬০টি দেশে করোনা সংক্রমণের হদিশ পাওয়া গেছে। এই মুহূর্ত পৃথিবীতে এক লক্ষেরও বেশি মানুষ করোনায় সংক্রমিত হয়েছে। তবে  চিনে প্রবল আকারে ছড়িয়েছিল এই জীবানু। চিনের বাইরে করোনার সব থেকে বেশি প্রভাব পড়েছে ইরানে। সেই দেশে করোনা সংক্রমণে প্রায় ১২০ জনের মৃত্যু হয়েছে। পাল্লা দিয়ে বাড়ছে আক্রান্ত সংখ্যা। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে রাখতে আগামী এক মাসের জন্য স্কুল ও বিশ্ববিদ্যালয় বন্ধ রাখার সিদ্ধান্ত নিয়েছে ইরান প্রশাসন। ভারতী যাওয়া অনেক শিয়া তীর্থ যাত্রীও আটকে পড়েছেন তেরহানে। তবে উদ্ধারে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়া হচ্ছে বলে জানিয়েছে ভারতের স্বাস্থ্য মন্ত্রক।