চিন জুড়ে করোনায় আক্রান্ত হাজার হাজার মানুষ। এই পরিস্থিতিতে মানব সেবাকেই বেছে নিয়েছিলেন তরুণ চিকিৎসক পেং ইনহুয়া। রোগীদের পাশে দাঁড়াতে নিজের বিয়েও পিছিয়ে দিয়েছিলেন ২৯ বছরের তরুণ চিকিৎসক। কিন্তু বান্ধবীর সঙ্গে সেই বিয়ের স্বপ্ন অপূর্ণই থেকে গেল এই চিকিৎসকের। মানুষের সেবা করতে গিয়ে নিজেও করোনাতে আক্রান্ত হয়েছিলেন পেং। আর তা থেকে মৃত্যুর কোলে ঢোলে পড়লেন উহানের এই তরুণ চিকিৎসক।

আরও পড়ুন: জঙ্গলে নাচছে তিন ভাল্লুক ছানা,খুদেদের কেরামতিতে মাত হল নেট দুনিয়া

জিয়ংজিয়া প্রদেশের ফার্স্ট পিপল হাসপাতালে কর্মরত ছিলেন পেং। হাসপাতালে রোগীদের চিকিৎসা করার সময় গত ২৫ জানুয়ারি করোনায় আক্রান্ত হন তিনি। ৩০ তারিখ থেকে তাঁর অবস্থার অবনতি হতে শুরু করে। উহানে জিয়াংটান হাসপাতালে তাঁর চিকিংসা চলছিল। সেখানেই বৃহস্পতিবার রাতে মৃত্যু হয় পেং ইনহুয়ার। 

আরও পড়ুন: বোতলে বন্দি মানুষের মস্তিষ্ক, সীমান্তে ছড়াল আতঙ্ক

বিশ্বজুড়ে আতঙ্ক ছড়িয়েছে চিনের এই করোনা ভাইরাস। চিকিৎসা করতে গিয়ে যার বলি হচ্ছেন চিনের স্বাস্থ্যকর্মীরাও। কয়েকদিন আগেই করোনার ছোবলে মৃত্যু হয়েছিল চিনা চিকিৎসক লি ওয়েনলিয়াং-এর। তিনি প্রথমে প্রাণঘাতী এই ভাইরাসের বিষয়ে সকলকে সতর্ক করার চেষ্টা করেছিলেন। 

আরও পড়ুন: সুপ্রিম নির্দেশের ফাঁপরে ট্রাম্প, তাজ দর্শনে ভরসা ব্যাটারি গাড়ি

এদিকে বৃহস্পতিবারই চিনের মূল ভূখণ্ডে নতুন করে ১,১০৯ জনের করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত হওয়ার খবর পাওয়া গেছে। যার ফলে চিনে বর্তমানে করোনায় আক্রান্তের সংখ্যা দাঁড়িয়েছে  ৭৫,৪০০। বৃহস্পতিবার চিনে নতুন করোনার বলি হয়েছেন ১১৮ জন। ফলে সবমিলিয়ে মৃতের সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ২,২৩৬। 

 

 

এদিকে আশঙ্কা বাড়িয়ে চিনের জেলগুলিতেও এই মারণ ভাইরাস ছড়িয়ে পড়েছে। চিনের বিভিন্ন জেলে ৫০০ জনের শরীরে করোনার জীবাণু পাওয়া গেছে। 

 

 

চিনে করোনায় সবচেয়ে খারাপ অবস্থা হুবেই প্রদেশের। বৃহস্পতিবার নতুন করে এই  প্রদেশের ২২০ জনের শরীরে করোনা ভাইরাস পাওয়া গেছে। হুবেইয়ের রাজধানী উহানেই সর্বপ্রথম করোনার আবির্ভাব ঘটে গত বছর ডিসেম্বরে।