গত নভেম্বর থেকে  দাবানলে পুড়ছে অস্ট্রেলিয়ার বিস্তির্ণ অঞ্চল। হাজার চেষ্টাতেও নিয়ন্ত্রণে আনা যাচ্ছে না সেই বিধ্বংসী আগুন। দাবানল নেভাতে প্রয়োজন হচ্ছে প্রচুর জলের। তারমধ্যে অতিরিক্ত জল খাচ্ছে উটের দল। তাই জল বাঁচাতে এবার ১০ হাজার উটকে মেরে ফেলার সিদ্ধান্ত নিল অস্ট্রেলিয়া প্রশাসন।

বুধবার থেকে শুরু হয়েছে এই উট নিধন যজ্ঞ। আগামী ৫ দিন ধরে চলবে এই অভিযান। এরজন্য হেলিকপ্টারেরও ব্যবস্থা করেছে  অস্ট্রেলিয়া প্রশাসন।

আরও পড়ুন : বিহারের মুজাফ্ফরপুরে শিশুহত্যার প্রমাণ নেই, শীর্ষ আদালতে দাবি করল সিবিআই

এগজিকিউটিভ বোর্ডের সদস্য মারিতা বাকের জানিয়েছেন, উটেদের জন্য স্থানীয় মানুষেরা সমস্যায় পড়ছেন। মানুষের খাওয়ার জল নেই। সেখানে জলাশয়ের সমস্ত জল উটেরা খেয়ে নেওয়ায় সমস্যা তৈরি হচ্ছে। 

আরও পড়ুন : শিল্পপতি ভক্তের দানের পরিমাণ এক কোটি, ব্যয় হবে তিরুপতির গোমাতাদের পরিচর্যায়

প্রশাসনের দাবি উটের দল এক টন কার্ডন ডাই অক্সাইডের সমপরিমাণ মিথেন গ্যাস নির্গমন করে উষ্ণায়নে অংশ নিচ্ছে। তাই অস্ট্রেলিয়ার এক আদিবাসী নেতার নির্দেশেই এই সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। তবে অস্ট্রেলিয় প্রশআসনের এই সিদ্ধান্ত ঘিরে নিন্দার ঝড় উঠেছে গোটা বিশ্বে। পরিবেশপ্রেমীর এই সিদ্ধান্তের কড়া বিরোধিতা করেছেন। এই কাজ করলে নিজেদের পরিবেশের ভারসাম্য নিজেরাই ধ্বংস করবে বলে দাবি করছএন তাঁরা। 

গত নভেম্বর থেকে দাবানলে জ্বলছে অস্ট্রেলিয়া। ৫.৫ মিলিয়ন হেক্টর এলাকা দাবানলের গ্রাসে।  এই ঘটনায় এখনও পর্যন্ত ২৪ জনের মৃত্যুর খবর পাওয়া গেছে। মৃত্যু হয়েছে কোটি কোটি বণ্য প্রাণির। দাবানলে মারা গিয়েছে ৮ হাজার কোয়েলাই। অস্ট্রেলিয়ার আগুনে ঢেকে গিয়েছে নিউজিল্যান্ডের রাজধানী অকল্যান্ডও। বিষাক্ত ধোঁয়ার আওতায় রয়েছেন এক কোটি মানুষ।