ডাক্তাররা বলছেন চিকিত্সাবিজ্ঞানের ইতিহাসে এই প্রথমবার এমন ঘটনা ঘটেছে। ইরাকের উত্তর অংশের দুহক শহরে তিনটি পুরুষাঙ্গ নিয়ে জন্মগ্রহণ করেছে একটি শিশু। মাস তিনেক আগে শিশুটির জন্ম হলেও, অতি সম্প্রতি তাঁর  এই অস্বাভাবিকতা সম্পর্কে জানা যায়। চিকিৎসাবিজ্ঞানে এই অবস্থাটার নাম ট্রাইফালিয়া। ডাক্তার শাকির সালেম জাবালি ইন্টারন্যাশনাল জার্নাল অফ সার্জারি-তে এই অত্যাশ্চর্য ঘটনা সম্পর্কে জানিয়েছেন।

ডাক্তার শাকির সালেম জাবালির নেতৃত্বাধীন দলটি জানিয়েছে, ওই শিশুর বাবা-মা তাঁর অণ্ডকোষের গোড়ায় দুটি অতিরিক্ত ত্বকের মতো জিনিস দেখতে পেয়েছিলেন। তৎক্ষণাৎ তারা শিশুটিকে ডাক্তারদের কাছে নিয়ে এসেছিলেন। বেশ কিছু পরীক্ষা করে ডাক্তাররা নিশ্চিত হয়েছিলেন ওই ত্বকের মতো বাড়তি দুটি অংশ আসলে আরও দুটি পুরুষাঙ্গ।

একটির মাপ ছিল ২ সেন্টিমিটার, অন্যটির মাত্র ১ সেন্টিমিটার। শুধু তাই নয়, তার প্রধান পুরুষাঙ্গ ছাড়া বাকি দুটি কার্যকরও ছিল না। তাই তার বাবা-মায়ের অনুমতি অনুসারে ডাক্তাররা অতিরিক্ত অঙ্গদুটিকে বাদ দিয়ে দিয়েছেন। কারণ এই অবস্থাটি স্বাস্থ্য সংক্রান্ত জটিলতা সৃষ্টি করতে পারে।

ওই গবেষণাপত্রে আরও বলা হয়েছে, ডাইফালিয়া, অর্থাৎ দুটি পুরুষাঙ্গ নিয়ে জন্মেছে এমন শিশু এর আগে দেখা গিয়েছে। ১৬০৯ সালে সুইডেনে প্রথম এই ঘটনা দেখা গিয়েছিল। সেই থেকে এখনও পর্যন্ত প্রায় এক হাজার জনের ক্ষেত্রে এরকমটা শোনা গিয়েছে। কিন্তু, তিনটি পুরুষাঙ্গ নিয়ে জন্ম, এই প্রথম।