কোভিড-১৯ মহামারি রুখতে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার (ডাব্লুএইচও) প্রতিক্রিয়ার পর্যালোচনার প্রস্তাবকে সমর্থন করল চিন। সোমবার বিশ্ব স্বংস্থা বা হু-এর বৈঠকে চিনের রাষ্ট্রপতি শি জিনপিং বলেছেন, চিন-ও এই বিষয়ে পর্যালোচনা চায়, তবে ভাইরাসটিকে নিয়ন্ত্রণে আনার পরে। একইসঙ্গে তিনি কোভিড-১৯ সংকট মোকাবিলায় বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থাকে আগামী দুই বছরে ২ বিলিয়ন মার্কিন ডলার অর্থ সাহায্যের প্রতিশ্রুতি দিয়েছেন। আরও বলেছেন, চিন যদি এই রোগের বিরুদ্ধে কোনও টিকা তৈরি করতে পারে, তবে তা জনকল্যানে সব দেশকে দেওয়া হবে।  

এদিন ইওরোপিয় ইউনিয়নের ২৭ সদস্য এবং ভারত-অস্ট্রেলিয়ার মতো আরও বেশ কয়েকটি দেশ, করোনাভাইরাস মহামারি বিষয়ে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা বা হু-এর প্রাথমিক প্রতিক্রিয়ার স্বাধীন মূল্যায়ন করার প্রস্তাব দিয়েছে। কীভাবে এই মহামারির উদ্ভব হল এবং তার মোকাবিলায় বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার প্রথামিক প্রতিক্রিয়া সঠিক ছিল কিনা - সব খতিয়ে দেখার প্রস্তাব দেওয়া হয়। মহামারি রুখতে হু-এর বিভিন্ন পদক্ষেপ এবং কোভিড-১৯ মহামারির টাইমলাইন পরীক্ষা করার দাবি জানিয়েছে তারা।

এরপরই এদিন ওয়ার্ল্ড হেলথ অ্যাসেমব্লি-তে একটি ভিডিও ভাষণে শি জিনপিং বলেন, ২০১৯ সালের শেষদিকে তাঁর দেশেই প্রথম কোভিড-১৯ প্রাদুর্ভাব দেখা দিয়েছিল। তারপর থেকে এই বিষয়ে চিন ডাব্লুএইচও এবং অন্যান্য দেশগুলিকে সমস্ত প্রাসঙ্গিক ও সময়োচিত তথ্য সরবরাহ করেছে। যারমধ্যে ভাইরাসটির জিনগত ক্রমও ছিল। শি দাবি করেন, 'কোনওকিছু চেপে না রেখে, বিশ্বের সকলের সঙ্গে আমাদের এই রোগ নিয়ন্ত্রণ ও চিকিৎসা সংক্রান্ত সব অভিজ্ঞতা ভাগ করে নেওয়া হয়েছে। সেইসঙ্গে অভাবী দেশগুলিকে সমর্থন ও সহায়তা করার জন্য আমরা আমাদের ক্ষমতার মধ্যে সব কিছু করেছি '। তিনি আরও বলেন, এই বিষয়ে তাঁরা উদ্দেশ্যমূলক ও নিরপেক্ষ পদ্ধতিতে পরিচালিত সব তদন্তকে সমর্থন করবেন। তবে এই তদন্ত বা পর্যালোচনা বিজ্ঞান ও পেশাদারিত্বের ভিত্তিতে হওয়া উচিত, বলেও তিনি মন্তব্য করেন।

সম্প্রতি বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা 'চিনের হয়ে কাজ করে' এই অভিযোগ তুলে মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প রাষ্ট্রসংঘের অধীনস্থ স্বাস্থ্য সংস্থার জন্য মার্কিন তহবিল কমিয়ে দিয়েছেন। কিন্তু, একেবারে উল্টো রাস্তায় হাঁটলেন শি জিনপিং। সোমবার তিনি জানিয়ে দিলেন, চিন আগামী দুই বছর সময়কাল ধরে কোভিড-১৯ মোকাবিলায় ২০০ কোটি মার্কিন ডলার অর্থ সহায়তা দেবে। এই সহায়তা বিশেষ করে বিশ্বের উন্নয়নশীল দেশগুলিতে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা ও তার বিভিন্ন উদ্যোগে দেওয়া হবে।