মজার ছলেই বানিয়ে ফেলেছিলেন। কিন্তু তা যে এতটা জনপ্রিয়তা পাবে তখন তা ভাবেননি চিনের এই তিনি। প্রায় এক বছর আগে, তখনও মার্কিন মসনদে রয়েছেন ডোনাল্ড ট্রাম্প, সেই সময়ে তাঁরই একটা মূর্তি তৈরি করেছিলেন। কিন্তু বছর ঘুরতে না ঘুরতেই সেই রকমই মূর্তি তৈরির অর্ডার পেতে শুরু করেছেন চিনের এক ছুতোর মিস্ত্রি।

চিনের ফার্নিচার নির্মাতা হংক জিনশি সর্বপ্রথম বুদ্ধদেবের ধ্যানরত অবস্থার আদলে আমেরিকা যুক্তরাষ্ট্রের প্রাক্তন রাষ্ট্রপতি ডোনাল্ড ট্রাম্পের এরটি মূর্তি তৈরি করেছিলেন। খুবই ছোট্ট সেই মূর্তি। সাদা রঙের। সেখানে ট্রাম্পকে অনেকটাই স্নিগ্ধ দেখাচ্ছে। গত বছর নিছক মজা করেই এজাতীয় কয়েকটি মূর্তি তৈরি করেছিলেন তিনি। কিন্তু ৬ মাস যেতে না যেতেই অন্যছবি। ফুজিয়ানা প্রদেশের একটি কর্মশালায় বসে বসে এজাতীয় প্রায় ২৫০টি মূর্তি বানিয়ে ফেলেছেন তিনি। আর বৌদ্ধ সন্ন্যাসীদের পোষাকে ধ্যানমগ্ন ট্রাম্প রীতিমত ভাইরাল নেটদুনিয়া। 

কিন্তু ট্রাম্প কেন? এই প্রশ্নের উত্তরে শিল্পী জানিয়েছেন তাঁদের সংস্কৃতির নিয়ম হল কোনও বৃদ্ধ ও সফল মানুষ বাকি জীবন শান্ত ও মোহমায়া ত্যাগ করে সন্ন্যাস জীবন যাবপ করবেন। এই নিয়ম মেনে এখন ট্রাম্পেও সন্যান জীবনে যাওয়ার কথা। সেই জন্যই স্বভাবে বুদ্ধদেবের বিপরীত হলেও তিনি ট্রাম্পের মূর্তি তৈরি করেছেন। ৬.৩ ইঞ্চি লম্বা এই মূর্তি ঘরে রাখতে খরচ করতে হবে ৯৯৯ ইউয়ান। ৪৬ সেন্টিমিটার মূর্তির দাম ২০ হাজার ইউয়ান। তবে শিল্পি এই মূর্তি উপহার দিতে চান ট্রাম্পকে। হংক মনে করেন তাঁর তৈরি মূর্তির মতই দিনে একটু ধ্যান করা উচিৎ ট্রাম্পের।