ভারত চিন সীমান্ত নিয়ে আবারও সরব হব হল চিন। সীমান্ত শান্তি ও প্রশান্তি বজায় রাখার জন্য দুই দেশতেই উদ্যোগ নিতে হবে বলে মন্তব্য করেছেন চিনা বিদেশ মন্ত্রী ওয়াং ইয়ি। তিনি বলেন ভারত ও চিন-এই দুটি দেশের একে অপরকে সন্দেহ করা ঠিক নয়। একই সঙ্গে তিনি মন্তব্য করেন ভারত ও চিন কখনই প্রতিদ্বন্দ্বী নয়। তবে পূর্ব লাদাখ সেক্টরে অস্থিরতার জন্য আবারও বেজিং ভারতকেই দায়ি করেছেন। 

রবিবার চিনা বিদেশ মন্ত্রী বলেন গত বছর সীমান্তবর্তী অঞ্চলে যা ঘটেছে তা একেবারেই ভুল ছিল। তিনি বলেন গতবছরের ঘটনাই প্রমাণ করেছে কোনও সংঘর্ষই কোনও সমস্যার সমাধান করতে পারে না। শান্তিপূর্ণ আলোচনার মাধ্যমেই সমস্যার সমাধান হয়। তিনি আরও বলেন চিনের অবস্থান খুবই স্পষ্ট। আলোচনা ও পরামর্শের  মাধ্যমে চিন সীমান্ত সমস্যা সমাধানে আগ্রহী। পাশাপাশি চিন নিজের দেশের সার্বভৌম্য অধিকার ও স্বর্থরক্ষায় প্রতিশ্রুতি বদ্ধ বলেও তিনি দাবি করেন। 

ওয়াং ভারতের সম্পর্কে কিছুটা সুর নরম করে বলেন চিন ভারত সম্পর্ক মূলত বিশ্বের বৃহৎ দুই উন্নয়নশীল দেশের সম্পর্ক। দুইটি দেশ একসঙ্গে কীভাবে এগিয়ে যাবে তা নিয়ে আলোচনা করা প্রয়োদন। দুই দেশের যৌথ উদ্যোগ ও সহযোগিতা প্রয়োজন বলেও জানিয়েছেন তিনি। বেশ কয়েকটি গুরুত্বপূর্ণ ইস্যুতে চিন ভারতের অবস্থান কাছাকাছি বলেও মন্তব্য করেন তিনি। তিনি বলেন উভয় পক্ষ একে অপরকে সন্দেহ করার পরিবর্তে সহযোগিতা করা অত্যান্ত জরুরি। তিনি আরও বলেন ভারত চিন দুই দেশ একে অপরের বন্ধু ও সহযোগী। এরপরই চিনা বিদেশ মন্ত্রী আশা সীমান্তে উত্তেজনা কমে আসবে বলেও আশা প্রকাশ করেছেন।