চিনে মারাত্মক আকার ধারণ করেছে করোনা ভাইরাস। প্রতিদিন লাফিয়ে লাফিয়ে বাড়ছে মৃতের সংখ্যা। এখনও পর্যন্ত এই মারণ ভাইরাসে দেশটিতে ১০৬ জনের মৃত্যু হয়েছে।রবিবার সরকারি ভাবে  করোনা ভাইরাসে আক্রান্তের সংখ্যা ছিল ২,৮৩৫।  সোমবার দেশে আক্রান্তের সংখ্যা দ্বিগুন বেড়ে গিয়ে তা  পৌঁছে গেছে ৪,৫১৫তে। ভাইরাসের সংক্রামণ আটকাতে চিনে ভ্রমণ নিষেধাজ্ঞাগুলি আরও কঠোর করা হয়েছে। 

 

 

গত ডিসেম্বরে চিনের উহান শহরে করোনা ভাইরাসের প্রাদুর্ভাব ঘটে। তারপর থেকেই চিনের বিভিন্ন শহরে এই ভাইরাস ছড়িয়ে পড়ছে। তবে সবচেয়ে শোচনীয় অবস্থা হুবেই প্রদেশের। সেকারণে রাজধানী উহান সহ গোটা হুবেই প্রদেশে যাতায়াতের বিষয়ে নিষেধাজ্ঞা জারি রয়েছে। হুবাই ছাড়াও নাগরিকদের চলাচলে কঠোর নিষেধাজ্ঞা জারি হয়েছে চিনের ৩০ টি প্রদেশে।

আরও পড়ুন: বেবি পাউডার থেকে ক্যানসার, জনসন অ্যান্ড জনসনের কর্তাকে এবার তলব

এদিকে করোনায় মৃতেদর অধিকাংশই বয়স্ক বলে জানা যাচ্ছে। দেশবাসীকে ঘরে রাখতে ও ভাইরাসের বিস্তার ঠেকাতে চিনে চন্দ্র নববর্ষের ছুটি  ২ ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত বাড়িয়ে দেওয়া হয়েছে। এর মধ্যেই প্রধানমন্ত্রী লি কেকিয়াং মহামারী প্রতিরোধ কর্মসূচি দেখতে উহান সফর করলেন। 

আরও পড়ুন: কুয়াশায় ঢাকা শহরে দুপুর থেকে মেঘলা আকাশ, সরস্বতী পুজো মাটি করতে আসছে বৃষ্টি

করোনা ভাইরাসের কারমে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র ইতিমধ্যে তার দেশের নাগরিকদের চিন ছাড়ার নির্দেশ দিয়েছে। কূটনীতিকদের যত শীঘ্র সম্ভব চিন ছাড়ার কথা বলা হয়েছে। একই পথে এগোচ্ছে জাপান, মঙ্গোলিয়া, ফ্রান্স এবং অস্ট্রেলিয়ার মত দেশগুলি। 

 

 

চিনে করোনা ভাইরাসে আক্রান্তদের মধ্যে রয়েছেন ভারতীয় নাগরিক প্রীতি মাহেশ্বরীও। প্রাইমারি স্কুলের শিক্ষিকা প্রীতি উহানের একটি হাসপাতালে ভর্তি রয়েছেন বলে জানা যাচ্ছে। তবে ধীরে ধীরে তার অবস্থার উন্নতি হচ্ছে বলে সোশ্যাল মিডিয়া সূত্রে খবর পাওয়া যাচ্ছে। এদিকে ভারতীয়দের ফিরিয়ে আনতে সোমাবার বিশেষ বিমান চালিয়েছে এয়ার ইন্ডিয়া।