দীর্ঘদিন ধরেই লড়াই চালিয়ে এসেছিল। কিন্তু শেষ রক্ষা হল না। ২০২০ শেষ পর্বে এসে করোনাভাইরাসের থাবা পড়ল বিশ্বের শেষপ্রান্তে। এবার আন্টার্কটিকা মহাদেশেও করোনাভাইরাসের সংক্রমণ দেখা দিয়েছে। সোমবার চিলিয়ান সেনা ঘাঁটিতে ৩৬ জন করোনা আক্রান্তের সন্ধান পাওয়া গেছে। আর তাতেই স্পষ্ট হয়ে গেল বিশ্বের সবকটি মহাদেশেই করোনা করাল থাবার ছাপ। এখন সাতটি মহাদেশের সাতটিতেই করোনা সংক্রমণের সন্ধান পাওয়া যাবে। 

আন্টার্কটিকা ১৩টি চিলিয়ান ঘাঁটির অন্যতম একটি হল ও-হিগনিস। এটির অবস্থান ওয়েস্ট আন্টার্কটিকা অস্ট্রেলিয়ার বেসের খুব কাছেই অবস্থিত।  পর্যটন ওয়েবসাইটের বর্ণনা অনুযায়ী চিনিয়ান ঘাঁটিতে পৌঁছানো সাধারণের পক্ষে কিছুটা হলেও কষ্টসাধ্য।  কিন্তু করোনাভাইরাসের সংক্রমণ পরুখতে বর্তমানে আন্টার্কটিকা পর্যনট পুরোপুরি বাতিল করা হয়েছে। কিন্তু তারপরেও কী করে সংক্রমণ ছড়িয়ে পড়ল তাই নিয়ে উঠেছে প্রশ্ন।  তাসমানিয়া বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক হান্নে নিলসেন জানিয়েছে এই মহাদেশে করোনাভাইরাসের উপস্থিতি যথেষ্ট প্রভাব ফেলবে।  সংক্রমণ রুখতে প্রায় বন্ধ করে দেওয়া হবে এক স্থান থেকে অন্য়স্থানে যাতায়াত। আর সেই কারণেই তাতে টান পড়তে পারে মজুত রসদে। আন্টারটিকার দূরবর্তী প্রকৃতি যেকোনও রকমের স্বাস্থ্য সম্পর্কিত ঝুঁকি বাড়িয়ে তোলে। আর আর সেই কারণেই দীর্ঘদিনের জন্য সীমাবদ্ধ করা হতে পারে যাতায়াত।

শ্রীনগরে খাতা খুলল বিজেপি, জম্মু ও কাশ্মীরের নির্বাচনে এগিয়ে গুফকার জোট ...

বিশ্বভারতীর শতবর্ষ অনুষ্ঠানে অংশ নেবেন নরেন্দ্র মোদী, একই মঞ্চে দেখা যেতে পারে মুখ্যমন্ত্রীকেও ..


ডেকিন বিশ্ববিদ্যালয়ের স্ট্র্যাটেজিক স্টাডির অধ্যাপক এলিজাবেথ বুচানান জানিয়েছেন, চিলির নীতি নির্ধাররকরা জিসেম্বরের প্রথম থেকে সেনা বাহিনী ও নৌবাহিনীর সদস্যদের নমুনা পরীক্ষা করেছিলেন। সংক্রমণ রুখে দেওয়ার জন্য বেশ কয়েকটি পরিকল্পনা গ্রহণও করেছিলেন। কিন্তু তারপরে কী করে সংক্রমণ ছড়িয়ে পড়ল তাই নিয়ে দেশা দিয়েছে প্রশ্ন। তবে পরিস্থিতি মোকাবিলার জন্য করোনা সংক্রান্ত প্রটোকলগুলি মেনে চলার পরামর্শ দিয়েছেন বিশেষজ্ঞরা।