দেশের মাটির বিক্ষোভ চাপা পড়ে গেল বিদেশের অভিনন্দনে। সিএএ নিয়ে এবার মোদীর ভূয়সী প্রশংসা করল প্রবাসী ভারতীয়রা। আমেরিকার টাইমস স্কোয়ারে সিএএ-র সমর্থনে এগিয়ে এল অনাবাসী ভারতীয়রা। যার ফলে কিছুটা হলেও নাগরিকত্ব সংশোধনী বিল নিয়ে মোদীর ভাবমূর্তি স্বচ্ছ হল।  

সিএএ নিয়ে বিক্ষোভে রেলের ক্ষতি হয়েছে ৮০ কোটি টাকা। অসম, পশ্চিমবঙ্গ, উত্তরপ্রদেশ ও দিল্লি ছাড়াও সব মিলিয়ে ৩০ জন মারা গেছেন বিক্ষোভে। বেশ কয়েকটি বিশ্ববিদ্যালয়ে নাগরিকত্ব আইনের বিরুদ্ধে লাগাতার প্রতিবাদ মিছিল হয়েছে। পরিস্থিতি সামলাতে লাঠিচার্জ এমনকী কাঁদানে গ্যাস ছুড়তে হয়েছে পুলিশকে। সম্প্রতি বিদেশের মাটিতেও সিএএ বিরোধী প্রতিবাদ হয়েছে। কিন্তু এসবের মধ্য়েই মোদী, অমিত শাহকে স্বস্তি দিল টাইমস স্কোয়ারের মিছিল।

এদিন সিএএ-র সমর্থনে এসে ভারত সরকারের এই পদক্ষেপকে ঐতিহাসিক পদক্ষেপ নিয়েছে বলে ভূয়সী প্রশংসা করেন প্রবাসী ভারতীয়রা। ২২ ডিসেম্বর  হাউস্টনে সিএএ-র সমর্থনে মিছিল করেন এই ভারতীয়রা। ২৮ ডিসেম্বর ওহিও, ডাবলিন ও নর্থ ক্যারেলিনা-সহ আমেরিকার বিভিন্ন জায়গায় দেখা যায় প্রবাসী ভারতীয়দের। এখানেই থেমে থাকেনি সিএএ-র প্রতি সমর্থন। রবিবার নিউইয়র্কের টাইমস স্কোয়ারে সিএএ-র সমর্থনে হাতে পোস্টার নিয়ে মিছিল করেন  তারা। 

অনেকের পোস্টারে বাংলাদেশ ও পাকিস্তানে হিন্দুদের পরিস্থিতি নিয়ে সওয়াল করা হয়। কেন এই দেশগুলিতে হিন্দুদের সংখ্য়া কমছে তা নিয়ে পোস্টারে প্রশ্ন করেন অনেকে। বেশিরভাগ পোস্টারেই লেখা ছিল,আমরা মোদীকে সমর্থন করি। আমরা সিএএকে সমর্থন করি।