সোমবার (২৯ এপ্রিল) ফের একবার দেখা গেল তাঁকে। ইসলামিক স্টেট জঙ্গি গোষ্ঠীর প্রধান আবু বকর আল-বাগদাদি। সাম্প্রতিক বছরগুলিতে ইরাক ও সিরিয়ায় আইএস বিরোধী অভিযানে সামিল দেশগুলি অনেকবারই তাঁর মৃত্যু হয়েছে বা তিনি গুরুতর জখম - এমন দাবি করেছে। কিন্তু, তারপরেও বারবারই সমর্থকদের উদ্দেশ্যে তিনি ভয়েস রেকর্ডে বার্তা দিয়েছেন। এইবার সশরীরে ধরাও দিলেন ভিডিওয়।

কী রয়েছে ভিডিওতে?

ভিডিওতে বাগদাদিকে দেখা গিয়েছে একটি সাদা রঙের ঘরে, গদির উপর বাবু হয়ে বসে আরও তিন জনের সঙ্গে বিভিন্ন বিষয়ে কথা বলতে। বাকি তিনজনের মুখ আবছা করে দেওয়া হয়েছে। বাগদাদি মেনে নিয়েছেন বাঘৌজে তাঁদের পরাজয় হয়েছে। একই সঙ্গে তিনি জানিয়েছেন পশ্চিমের বিরুদ্ধে আইএস লম্বা যুদ্ধে নেমেছে। একটা লড়াই হেরে যাওয়াতে তা শেষ হয়ে যাবে না। মৃত আইএস জঙ্গিদের জন্য প্রতিশোধ নেওয়া হবে বলে হুমকিও দিয়েছেন বাগদাদি।

বাঘৌজের বদলা শ্রীলঙ্কা

শুধু ফাঁকা হুমকিই নয়, চলতি মাসেই শ্রীলঙ্কায় যে জঙ্গি হামলা হয়েছে তা বাঘৌজে মার্কিন সমর্থিত আইএস বিরোধী বাহিনীর হামলার প্রতিশোধ বলে দাবি করেছে বাগদাদি। 'ইস্টার সানডে'-তে কলম্বোর একটি চার্চ ও হোটেলে 'সুইসাইড বম্বার'-রা আত্মঘাতি হামলা চালায়। এই হামলার জন্য সংশ্লিষ্ট জঙ্গিদের অভিনন্দন জানিয়েছেন আইএস প্রধান। এই অংশটিই এই ভিডিও-র মধ্যে সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ বলে মনে করা হচ্ছে।

কখন ও কোথায় তোলা ভিডিও?

ভিডিওটি ঠিক কখন ও কোথায় তোলা হয়েছে তা স্পষ্ট নয়। কিন্তু বাঘৌজের এক মাসব্যাপি লড়াই নিয়ে আলোচনা করায় ধরে নেওয়া যায় ভিডিওটি বাঘৌজে আইএস-এর পতনের পরই রেকর্ড করা। গত মাসেই পূর্ব সিরিয়ায় এই শেষ ঘাঁটিটি হাতছাড়া হয়েছে আইএস-এর। এরপর এক পক্ষের দাবি ছিল একটি এয়ারস্ট্রাইকে মৃত্যু হয়েছে আইএস প্রধানের। আরেকটি মত ছিল সে সিরিয়া বা ইরাকের মরুভূমিতে আত্মগোপন করে আছে। ভিডিওটি দেখে কিন্তু তার অবস্থান সম্পর্কে ধারণা করা সম্ভব হয়নি।

৫ বছরে বদল শুধুই একটু পাকা দাড়ি

এর আগে ২০১৪ সালের জুলাই মাসে এরকমই এক প্রকাশিত ভিডিওতে উত্তর ইরাকের মসুল শহরের আল-নুরি মসজিদ থেকে বাগদাদি ইসলামিক খিলাফত প্রতিষ্ঠার ডাক দিয়েছিল। সেই শেষবার বস্তুত ওই একবারই তাঁর কোনও ভিডিও বা ছবিতে ধরা দিয়েছিল সে। সোমবার প্রকাশিত ভিডিও-তে ৫ বছর আগের সেই ছবিটার থেকে বদল বলতে শুধুই লম্বা দাড়িতে কিছু পাক ধরা। এর আগে আইএস বিরোধী জোট শক্তি বহুবার তাঁর গুরুতর জখম হওয়ার দাবি করেছে। ভিডিও-তে ধরা পড়া মানুষটি যদি সত্যিই বাগদাদি হয়, তাহলে কিন্তু বলতে হবে তার স্বাস্থ্যের কিন্তু কোনও অবনতি হয়নি। বহাল তবিয়তেই আছে সে।

এই ভিডিও প্রকাশের তাৎপর্য

এই ভিডিও প্রকাশ ফের বাগদাদিকে হিসেবের মধ্যে এনে ফেলল বলেই মনে করছে বিভিন্ন বিশ্লেষক গোষ্ঠী। 'সাইট ইন্টেলিজেন্স গ্রুপ'-এর ডিরেক্টর রিটা কার্টজ যেমন টুইট করে জানিয়েছেন, এই ভিডিও শুধু বাগদাদির জীবিত থাকার প্রমাণই নয়, রয়েছে আরও বড় বিপদের আভাস। তাঁর মতে বাগদাদি বুঝিয়ে দিয়েছে, আইএস-এর খিলাফতের পতন হলেও বিভিন্ন দেশে ছিটকে যাওয়া জঙ্গিদের ফের একত্রিত করতে তিনি সক্ষম। এ পাশাপাশি আইএস-এর বিরুদ্ধে যেসব পদক্ষেপ নেওয়া হয়েছে তাতে তার 'বিশ্ব বনাম আমরা' এই বার্তা জঙ্গিদের মধ্যে ছড়িয়ে দিতে সুবিধাই হবে।