সপ্তদশ লোকসভা নির্বাচনের এই প্রথম এবং এই প্রধানমন্ত্রী হওয়ার পর এই নিয়ে দ্বিতীয়বার হিমালয়ের কোলের এই ছোট্ট প্রতিবেশি দেশ সফরে গেলেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী। প্রধানমন্ত্রীর দু'দিনের ভুটান সফরের আজ ছিল দ্বিতীয় দিন। আর এই দ্বিতীয় দিনে থিম্ফু-তে অবস্থিত রয়্যাল ইউনিভার্সিটি অফ ভুটান-এ গিয়েছিলেন মোদী। সেখানে উপস্থিত বিশ্ববিদ্যালয়ের সব ছাত্রছাত্রীদের উদ্দেশে বিশেষ কিছু বক্তব্য পেশ করেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী।

এদিন ছাত্র-ছাত্রীদের উদ্দেশে প্রধানমন্ত্রী বলেন, কঠোর পরিশ্রমের মাধ্যমে হিমালয়ের কোলের থাকা এই দেশটিকে এক অন্য় মাত্রায় পৌঁছে দিতে হবে। তারুণ্যের লক্ষ্যে এগিয়ে যাওয়ার জন্য এর থেকে ভাল ,সময় আর হয় না। এদিন মোদী আরও বলেন, 'ভুটান নিজের প্রচেষ্টায় আকাস ছুঁলে তার ১.৩ বিলিয়ন ভারতীয় বন্ধু তা শুধু তাকিয়ে দেখবেই না বরং তারাও গর্বের সঙ্গে উল্লাস করবে। তাঁরা তোমাদের সহযোগী হবে, তোমাদের সঙ্গে ভাগ করে নেবে এবং তোমাদের থেকে শিখবেও।'

ভুটান সফরে কল্পতরু মোদী, জলবিদ্যুৎ প্রকল্পের বাইরে দুই দেশের সুসম্পর্ক স্থাপনের বার্তা দিলেন প্রধানমন্ত্রী

প্রধানমন্ত্রীর ভাষণ শুনতে এদিন রয়্যাল ভুটান বিশ্ববিদ্যালয়ের এক ঝাঁক তরুণ তুর্কি তাঁদের ঐতিহ্য়বাহী পোশাক পরে সমবেত হয়েছিল বিশ্ববিদ্যালয়ের সভাঘরে। এদিন সেখানে দাঁড়িয়ে প্রধানমন্ত্রী আরও বলেন, বিশ্ব আজ আগের থেকে অনেক বেশি সুযোগ সুবিধা প্রদান করছে। ছাত্রছাত্রীদের সেই ক্ষমতা রয়েছে অসাধারণ কিছু করে দেখানোর, যা আগামী প্রজন্মকেও প্রভাবিত করার চেষ্টা করবে। 

বিদেশের মাটিতে দাঁড়িয়েও ভারতের চন্দ্রযান-২-এর চন্দ্রাভিযানের প্রসঙ্গ তুলে ধরেন নরেন্দ্র মোদী। এদিন তিনি বলেন, ভুটানও নিজের উপগ্রহ তৈরির থেকে আর খুব বেশি দূরে নেই। তিনি আরও বলেন যে এই বিষয়টি অত্যন্ত গর্বের যে ভুটান থেকে বিজ্ঞানীরা ভারতে আসবেন এবং নিজেদের উপগ্রহ তৈরি করে তা উৎক্ষেপণ করবেন। রয়্যাল বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র-ছাত্রীদের উদ্দেশে মোদী বলেন যে, তিনি আশাবাদী যে একদিন তাঁদের মধ্যে থেকেই কেউ বৈজ্ঞানিক, ইঞ্জিনিয়ার এবং আবিস্কর্তা হিসাবে নিজেকে প্রতিষ্ঠিত করবে।