ভ্যাকসিন আসার পর যখন মহামারি কবে দূর হবে, সেই নিয়ে আলোচনা চলছিল, সেই সময়ই ফের উদ্বেগে ফেলেছে নভেল করোনাভাইরাসের নতুন স্ট্রেন। প্রথমে যুক্তরাজ্য, তারপর আরও কয়েক ধাপ এগিয়ে যাওয়া করোনার নতুন রূপান্তরের সন্ধান মিলেছে দক্ষিণ আফ্রিকায়। রূপান্তরিত করোনা আগের থেকে আরও বেশি সংক্রামক, তা প্রথমেই জানা গিয়েছিল, প্রশ্ন ছিল তার মারণক্ষমতা নিয়ে। এবার লন্ডনের স্কুল অব হাইজিন অ্যান্ড ট্রপিকাল মেডিসিনের এক গবেষক দল সাফ জানিয়েদিল নতুন স্ট্রেন বা রূপান্তরটি আরও বেশি প্রাণঘাতীও বটে।

গবেষকরা নয়া সংক্রমণের গাণিতিক মডেল সংক্রান্ত গবেষণা করে জানিয়েছে নতুন রূপান্তরটি করোনার অন্যান্য  স্ট্রেনের চেয়ে ৫৬ শতাংশ বেশি সংক্রামক। তাদের দাবি, ২০২১ সালে আরও বেশি সংখ্য মানুষকে হাসপাতালে ভর্তি হতে হবে এবং আরও বেশি মৃত্যুরও আশঙ্কা রয়েছে। তারা আরও বলেছে, অবিলম্বে স্কুল এবং বিশ্ববিদ্যালয়গুলি বন্ধ না করলে রূপান্তরিত করোনাভাইরাসের প্রজনন সংখ্যা একেরও নিচে নামিয়ে আনার সম্ভাবনা নেই। তাই সংক্রমণও কমবে না। টিকাকরণ প্রক্রিয়ার গতি বাড়ালে নতুন কোভিড স্ট্রেনটির বিস্তার মোকাবিলা করা যেতে পারে বলেও জানানো হয়েছে লন্ডনের এই গবেষণায়।

এর আগে, যুক্তরাজ্য সরকার জানিয়েছিল করোনভাইরাস নতুন রূপান্তটি ভাইরাসটির অন্যান্য সনাক্ত হওয়া স্ট্রেনগুলির তুলনায় অন্তত ৭০ শতাংশ বেশি সংক্রমণযোগ্য বলে প্রাথমিকভাবে মনে করা হচ্ছে। তাদের প্রধান বৈজ্ঞানিক উপদেষ্টা প্যাট্রিক ভ্যালেন্স জানিয়েছেন, নয়া রূপান্তরটি আগের করোনাভাইরাস রূপান্তরগুলিকে সরিয়ে তাদের জায়গা নিচ্ছে। বর্তমানে নতুন রূপান্তরটিই প্রধান হয়ে উঠছে। আর এর জন্য়ই সংক্রমণও আচমকা দ্রুত বৃদ্ধি পাচ্ছে। তিনি আরও জানান, যদি বেশি প্রাণঘাতী নাও হয় রূপান্তরটি, শুধু সংক্রমণ বৃদ্ধির কারণেই হাসপাতালগুলি উপচে পড়বে। পরিষেবা না পেয়েই আরও হাজার হাজার লোক তাদের প্রাণ হারাবেন। তাই দ্রুত ব্যবস্থা নেওয়ার পরামর্শ দিয়েছিলেন তিনি।