গ্রেটা থুনবার্গ। এই নামটা শোনার পরেই মাথায় যেটা আসে তা হল, জলবায়ু পরিবর্তনের বিরুদ্ধে লড়ে চলা এক কিশোরীর মুখ। কিছু দিন আগেই তাঁকে রাষ্ট্রসংঘের সাধারণ অধিবেশনে বক্তব্য রাখার জন্য আমন্ত্রিত করা হয়েছিল। সেখানে জলবায়ু পরিবর্তনের ওপর তাঁর গভীর বক্তব্য সারা বিশ্বের মানুষের মনে দাগ কেটেছিলেন। শুধু তাই নয় জলবায়ু পরিবর্তন নিয়ে বিশ্বের তাবড় তাবড় নেতারা আদৌ কিছুই করছেন, রীতিমতো হুমকির সুরে এই মন্তব্য করেছিলেন ওই কিশোরী। সেই মন্তব্য বিশ্বজুড়ে ভাইরাল হয়ে গিয়েছে। ফের গ্রেটা থুনবার্গ ভাইরাল হয়ে গিয়েছেন। এবারের কারণ জলবায়ু পরিবর্তন বা তাঁর আগ্রাসী কোনও মন্তব্য নয়। তাঁর মুখের হুবহু মিল পাওয়া গিয়েছে ১২০ বছর পুরনো একটা ছবির সঙ্গে। 

 

সম্প্রতি সোশ্যাল মিডিয়ায় ১৮৮৯ সালের একটি ছবি পোস্ট করা হয়েছে।  সাদা কালো সেই ছবিতে দেখতে পাওয়া গিয়েছে তিনটি কিশোরী এক জায়হায়  খেলছে। সেখানেই ছবি তোলা হয়েছে। তার মধ্যে একজনের মুখ গ্রেটার মতো। শুধু গ্রেটার মতো বললে ভুল হবে।  মনে হচ্ছে গ্রেটার কোনও সাদাকালো ছবি সেখানে পোস্ট করে দেওয়া হয়েছে। গ্রেটার মতো করেই ১২০ বছর আগের ওই কিশোরী চুল বেঁধেছে। 

 

 


বিশ্বের বিভিন্ন প্রান্তের বহু মানুষ এই দুটি ছবি টুইটারে পোস্ট করেছেন। কেউ লিখেছেন যমজ বোন বলে মনে হচ্ছে। আবার কেই লিখেছেন কোথা সাদা কালো ছবিটা যে গ্রেটার নয়, সেটা বোঝাই যাচ্ছে না। মনে হচ্ছে  গ্রেটারই ছবি সাদা কালো করে দেওয়া হয়েছে। তবে ১২০ বছরেরর এই ছবিটি কোথা থেকে এসেছে, ছবিটি কোথাকার সেই বিষয়ে এখনও পর্যন্ত কিছু জানা যায়নি। ছবিটি এত ভাইরাল হয়েছে, ১২০ বছরের পুরনো ছবি সবার প্রথম কে পোস্ট করেছিল, তা জানা যায়নি।