ধবধবে সাদা রঙের জিরাফ। অত্যন্ত বিরল এই প্রাণীর শেষ মহিলা সদস্যটিকে হত্যা করেছে চোরা শিকারিরা। কেনিয়ার ইসাকবিনি হিরোলা কনজারভেন্সি-র পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে সম্প্রতি ওই সাদা মা জিরাফ এবং তার এক শাবক-কে শিকারিরা হত্যা করেছিল। তাদের কঙ্কাল মিলেছে।

বেশ কয়েকদিন ধরেই এই সাদা মা জিরাফ-টিকে এবং তার শাবকদের দেখা পাওয়া যাচ্ছিল না। তারপর তাদের খোঁজের জন্য কেনিয়া ওয়াইল্ডলাইফ সার্ভিসকে ডাকা হয়েছিল এই অভয়ারন্যে। তারাই ওই দুটি প্রাণীর কঙ্কাল খুঁজে পায়। কর্মকর্তাদের মতে, কমপক্ষে ৪ মাস আগেই ওই সাদা জিরাফদুটিকে হত্যা করা হয়েছে।

কেনিয়ার গরিসা কাউন্টির অভয়ারন্যের ম্যানেজার মহম্মদ আহমেদনূর বলেছেন ইজারা সম্প্রদায় এবং সামগ্রিক ভাবে কেনিয়ার জন্য এটি অত্যন্ত দুঃখের দিন। কেনিয়া ইজারা সম্প্রদায়ই বিশ্বে একমাত্র সাদা জিরাফের রক্ষাকারী। আর কোথাও এই জিরাফ দেখতে পাওয়া যায় না।এই দুটি সাদা জিরাফের মৃত্যুর পর এখন শুধুমাত্র একটি সাদা জিরাফই বেঁচে রয়েছে। কিন্তু সেটি পুরুষ। ফলে সাদা জিরাফের সংখ্যা আর বাড়ার সম্ভাবনা নেই।

২০১৭ সালে প্রথম এই মহিলা সাদা জিরাফটি একটি শাবকের জন্ম দিয়েছিল। সেই নিয়ে সেই সময়ে বিশ্বজুড়ে দারুণ হইচই পড়ে গিয়েছিল। এরপর আরও একটি শাবকের জন্ম দিয়েছিল জিরাফটি। এই তিনটি জিরাফ অভয়ারন্যের সীমার মধ্যেই থাকত। বলাই বাহুল্য এই সাদা জিরাফের পরিবারটি গোটা বিশ্বের পর্যটকদের জন্য দারুণ আকর্ষণীয় ছিল। শুধু মাত্র সাদা জিরাফ দেখতেই কেনিয়ার ইসাকবিনি হিরোলা কনজারভেন্সি-তে আসতেন অনেকে।

এই সাদা জিরাফ ছিল জেনেটিক্স গবেষণার ফসল। শুধু পর্যটন টানাই নয়, এই জিরাফদের উপর অনেক গুরুত্বপূর্ণ জেনেটিক গবেষণার কাজও নির্ভর করে ছিল। আহমেদনূর আরও জানিয়েছেন, জেনেটিক্সের গবেষণার জন্য গবেষকরা এই অঞ্চলে যে বিপুল পরিমাণ বিনিয়োগ করেছিলেন, চোরাশিকারিদের এই জঘন্য কাজে তা এখন পুরোটাই জলে গিয়েছে। এই ক্ষতির দীর্ঘমেয়াদী প্রভাব পড়বে বলে জানিয়েছেন তিনি।