অনেকটাই পেছনে পড়ে গিয়েছে ইউরোপের স্পেন ও ইতালি। আমেরিকায় করোনা সংক্রমণের সংখ্যা যেভাবে বাড়ছে তাতে ভয় ধরাচ্ছে সকলকেই। দেশটিতে আক্রান্তের সংখ্যা ইতিমধ্যে ৭ লক্ষ ছাড়িয়ে গিয়েছে। তারমধ্যে মৃত্যু মিছিলে প্রায় প্রতিদিনই রেকর্ড গড়ছে আমেরিকা। শুক্রবারও সেই ধারা অব্যাহত থাকল। গত ২৪ ঘণ্টায় দেশটিতে করোনা সংক্রমণে মৃত্যু হয়েছে ৩,৮৫৬ জনের। যা গোটা বিশ্বে কোনও দেশের পক্ষে একদিনে করোনাভাইরাসে সবচেয়ে বেশি মৃত্যুহার।

জন হপকিনস বিশ্ববিদ্যালয়ের দেওয়া তথ্য অনুযায়ী শুক্রবার পর্যন্ত মার্কিন মুলুকে করোনা সংক্রমণের সংখ্যা ৭ লক্ষ ২৮২। আর মৃতের সংখ্যা ৩৬,৭৭৩। চলতি সপ্তাহে কেবল নিউইয়র্কের করোনা সংক্রমণে মৃত্যু হয়েছে ৩,৭৭৮ জনের। 

মৃত্যু মিছিলে এখন আমেরিকার থেকে অনেকটাই পিছিয়ে গিয়েছে ইতালি। ইউরোপের এই দেশে এখনও পর্যন্ত করোনা সংক্রমণে মৃত্যু হয়েছে ২২,৭৪৫ জনের। জানা যাচ্ছে, ধীরে ধীরে মৃত্যু হার কমছে ইতালিতে। তবে দেশটির জনসংখ্যা আমেরিকার জনসংখ্যার মাত্র এক পঞ্চমাংশ। এদিকে করোনাভাইরাস সংক্রমণে মৃতের তালিকায় তৃতীয় নম্বরে রয়েছে ইউরোপের আরেক দেশ স্পেন। এখানে এখনও পর্যন্ত মৃত্যু হয়েছে ১৯,৪৭৮ জনের। ফ্রান্স রয়েছে চতুর্থ স্থানে। দেশটিতে মৃতের সংখ্যা ১৮,৬৮১।

এদিকে করোনাভাইরাস মহামারিতে দেশের ক্ষতিগ্রস্ত কৃষক ও দরিদ্রদের খাদ্য সহায়তায় ১৯ বিলিয়ন ডলারের আর্থিক প্যাকেজ ঘোষণা করলেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট। এর মধ্যে ১৬ বিলিয়ন ডলারই মাংস, দুগ্ধ, সব্জিজাতীয় কৃষিপণ্য উৎপাদকদের সরাসরি অর্থ সহায়তা হিসেবে দেওয়া হবে।

মোদীর পর এবার ইমরানের দিকে সাহায্যের হাত, পাকিস্তানকে ৮.৪ মিলিয়ন ডলার দিলেন ট্রাম্প

ভারতীয় নৌবাহিনীর অন্দরেও এবার করোনার থাবা, একসঙ্গে আক্রান্ত কমপক্ষে ২০ জন আধিকারিক

করোনা আক্রান্ত বিশ্বে ভারত যেন 'দেবদূত', হাইড্রক্সিক্লোরোকুইন পেল বিপন্ন ৫৫টি দেশ

মার্কিন সিনেটে দেওয়া বিবৃতি অনুযায়ী, কৃষক ও খামারিদের সহায়তায় ১৬ বিলিয়ন ডলারের মধ্যে ৯.৬ বিলিয়ন ডলার বরাদ্দ হয়েছে প্রাণিসম্পদ শিল্পের জন্য। এর মধ্যে আবার ৫.১ বিলিয়ন ডলার গবাদিপশুতে, ২.৯ বিলিয়ন ডলার দুগ্ধের জন্য এবং ১.৬ বিলিয়ন শূকরপালকদের সহায়তায় দেওয়া হচ্ছে।

বিবৃতি অনুসারে, ফসল উৎপাদকদের ৩.৯ বিলিয়ন ডলার, বিশেষ ধরনের ফসল উৎপাদকদের ২.১ বিলিয়ন এবং অন্যান্য ফসলের জন্য ৫০০ মিলিয়ন ডলার দেওয়া হবে।

 হোয়াইট হাউসে এক সংবাদিক সম্মেলনে যুক্তরাষ্ট্রের কৃষিমন্ত্রী সনি পারডু বলেন, "করোনাভাইরাসের কারণে অন্য সবকিছুর মতো যুক্তরাষ্ট্রের কৃষিতেও ভয়াবহ আঘাত পড়েছে। এই জাতীয় দুর্যোগ কাটিয়ে উঠতে প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প আমাদের কৃষক ও সব আমেরিকানদের পাশে রয়েছেন।"