বুধবার রাতে মার্কিন সংসদ ভবন, ক্যাপিটল হিলে হামলা চালিয়েছিল ডোনাল্ড ট্রাম্পের সমর্থকরা। ভাইরাল হওয়া ভিডিওয় ভারতীয় পতাকা হাতে এক ব্যক্তিকে দেখা গিয়েছিল। শুক্রবার বের হল এক গুরুতর সত্য। এদিন বিজেপি নেতা বরুণ গান্ধী অভিযোগ করেছেন, ওই ব্যক্তি কংগ্রেস সাংসদ শশী থারুরের 'প্রিয় বন্ধু' এবং মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের এই হিংসার পিছনে কংগ্রেসের 'নীরব হাত' থাকতে পারে।

শুক্রবার, এক টুইট করে বরুণ গান্ধী জানিয়েছেন ওই জাতীয় পতাকা হাতে ক্য়াপিটল হিলের হিংসার ঘটনায় অংশগ্রহণকারীর নাম ভিনসেন্ট জেভিয়ার। সে ভারতের জাতীয় কংগ্রেসের সমর্থক এবং অতীতে কংগ্রেসের বেশ কয়েকজন বড় নেতার সঙ্গে তিনি সাক্ষাত-ও করেছেন বলে জানিয়েছেন নেটিজেনদের একাংশ। এমনকী শশী থারুরের জয়ে তার উচ্ছ্বাস প্রকাশ করার পোস্টও মিলেছে। ওই ব্যক্তির ছবি শেয়ার করে বরুণ, শশী থারুরকে প্রশ্ন করেছেন কংগ্রেস পার্টি কি নীরবে ওয়াশিংটন ডিসিতে হওয়া এই হিংসাত্মক ঘটনাকে সমর্থন করছে?

ট্রাম্প সমর্থকদের মিছিলে ভারতের জাতীয় পতাকা নিয়ে বিতর্ক শুরু হওয়ার পর, সোশ্য়াল মিডিয়ায় সেই ঘটনার ব্যাখ্য়াও দিয়েছেন ভিনসেন্ট জাভিয়ার। তিনি বলেন, শুধু ভারত নয়, ভিয়েতনাম, কোরিয়া এমনকী ইরানের পতাকাও ছিল ওই মিছিলে। বিভিন্ন দেশ থেকে আসা 'মার্কিন দেশপ্রেমিক' হিসাবে নিজেদের পরিচয় দিতেই তাঁরা নিজ নিজ দেশের পতাকা নিয়ে গিয়েছিলেন। তাঁরা সকলেই বিশ্বাস করেন আমেরিকার ভোটে 'ব্যাপক জালিয়াতি' হয়েছে। তাই, ডোনাল্ড ট্রাম্পের প্রতি সংহতি জানাতেই 'শান্তিপূর্ণ' প্রতিবাদ করতে গিয়েছিলে তাঁরা ক্যাপিটল হিলে, এমনটাই দাবি করেছেন জাভিয়ার।

বস্তুত, বুধবার থেকেই ক্যাপিটল হিলের ঘটনায় ভারতীয় পতাকা বহন করা নিয়ে বাকযুদ্ধ শুরু হয়েছিল বিজেপি নেতা বরুণ গান্ধী ও কংগ্রেস সাংসদ শশী থারুরের মধ্যে। বরুণ গান্ধী ট্রাম্পপন্থীদের মধ্যে ভারতীয় পতাকার ভিডিওটি টুইট করার পরই, নাম না করে বিজেপি-কে ঠুকে থারুর বলেছিলেন 'ট্রাম্পপন্থী জনতার মতো একই মানসিকতা কিছু ভারতীয়র মধ্যেও দেখা যায়।" প্রতিক্রিয়ায় বরুণ গান্ধী জেএনইউ-র মতো ভারতে হওয়া 'দেশবিরোধী বিক্ষোভে'র সময় ভারতের বেশিরভাগ উদারপন্থীরা জাতীয় পতাকা ব্যবহার করার বিষয়টিকে উপেক্ষা করেন কেন, ,সেই প্রশ্ন তুলেছিলেন।

বুধবারের ওই ঘটনায় আগেই এক মহিলা-সহ মৃত্যু হয়েছিল ৪ ব্যক্তির। পরে আহত এক পুলিশকর্মীরও মৃত্যু হয়েছে বলে জানানো হয়েছে মার্কিন পুলিশ বিভাগের পক্ষ থেকে।