নাম বদলে আইপিএল-ভাগ্য বদলের লক্ষ্যে আরও একধাপ এগিয়ে গেল দিল্লি ক্যাপিটাল্স। ডেয়ারডেভিল্স নামে যা হয়নি, তাই হল ক্যাপিটাল্স নাম নিয়ে। প্রথমবার কোনও আইপিএল প্লেঅফ ম্যাচ জিতল দিল্লির দলটি। বিশাখাপত্তমে মূলত দুই তরুণ পৃথ্বী শ (৫৬) ও ঋষভ পন্থ (৪৯)-এর সৌজন্যেই একেবারে শেষ বলে ২ উইকেটে জয় পেল দিল্লি ক্যাপিটাল্স। ফলে শুক্রবার কোয়ালিফায়ার ম্যাচে ধোনির সিএসকের বিরুদ্ধে প্রথমবার আইপিএল ফাইনালে ওঠার লক্ষে নামবে শ্রেয়স আইয়ারের দল।

এদিন কিন্তু ম্যাচের অধিকাংশ সময়ই এসআরএইচ ও দিল্লি ক্যাপিটাল্স বলা যেতে পারে সমানে সমানেই লড়েছে। পিচ পুরোপুরি ব্যাটসম্যানদের সহায়ক ছিল না। মার্টিন গাপ্টিলের মারকুটে ব্যাটিংয়ে প্রথম পাওয়ার প্লে-তে হায়দরাবাদ ৫৪ রান তুলেছিল।
পাওয়ার প্লে শেষ হতেই বিদায় নিয়েছিলেন কিউই ব্যাটসম্যান।রপর অধিনায়ক উইলিয়ামসন ও মনীশ পাণ্ডে বড় শট খেলতে না পারলেও উইকেট ধরে রেখেছিলেন। দুনে জুটিতে ৪২ বলে ৩৪-এর বেশি তুলতে পারেননি। শেষের দিকে নবি ও বিজয় শকর হাত খুলে খেলে ২০ ওভারে সানরাইজার্স ইনিংস ১৬২ রানে পৌঁছে দিয়েছিলেন।

দিল্লি ক্যাপিটাল্স-ও বলা ।যেতে পারে প্রায় হায়বাদের মতো করেই ইনিংস এগিয়ে নিয়ে গিয়েছে। পাওয়ার প্লে রান তোলার দায়িত্ব ছিলেন তরুণ পৃথ্বী। তাঁর পরাক্রমে দিল্লি ৬ ওভারে ৫৫ রান তুলেছিল। পাওয়ার প্লে-র পরে দিল্লির রান তোলার গতিও পড়ে যায়। পরের ৫ ওভারে মাত্র ৩৪ রান উঠেছিল।

পৃথ্বী ৩৮ বলে ৫৬ রানের দারুণ ইনিংস খেললেও দুই দলের মধ্যে প্রধান তফাতটা গড়ে দেয় পথের ২১ বলে ৪৯নের ইনিংস। কলিন মুনরো, অক্ষর প্যাটেল, রাদারফোর্ডদের মতো বড় নাম স্ট্রোক খেলতে না পারলেও তরুণ বাঁহাতি ঘাবড়াননি। তবে শেষ দিকে আবার পর পর কয়েকটি উইকেট পড়ে গিয়ে দিল্লির লাইনআনড়বড় করা শুরু করেছিল, কিন্তু শেষ বলে চার মেরে জয় নিশ্চিত করেন কিমো পল।