রবিবার রুদ্ধশ্বাস আইপিএল ২০১৯ ফাইনালে মাত্র ১ রানে জিতে রেকর্ড সংখ্যক চার-চারবার আইপিএল চ্যাম্পিয়ন হয়েছে তাঁর দল। মুম্বই ইন্ডিয়ান্স অধিনায়ক রোহিত শর্মা কিন্তু তার চেয়েও বড় এক রেকর্ড করে বসে আছেন। আইপিএল-এ সর্বোচ্চ রানের রেকর্ড রায়না- কোহলিদের হাতে থাকতে পারে, ছক্কার রেকর্ড থাকতে পারে গেইল-ধোনিদের হাতে। আটবার দলকে ফাইনালে তোলার অধিনায়কত্বের রেকর্ডও থাকতে পারে ধোনির ঝুলিতে। কিন্তু, পাঁচবার আইপিএল ফাইনাল খেলে পাঁচবারই চ্যাম্পিয়ন হওয়া - এই রেকর্ড কিন্তু রোহিত শর্মা ছাড়া আর কারোর নেই। কাছাকাছি আছেন আম্বাতি রায়ডু, কিয়েরন পোলার্ড ও লাসিথ মালিঙ্গা - যাঁরা প্রত্যেকেই চারবার করে আইপিএল জয়ী হয়েছেন।

এক নজরে দেখে নেওয়া যাক রোহিত শর্মার পাঁচটি আইপিএল জয় -

প্রথম আইপিএল জয়, ২০০৯

প্রথমবার যখন আইপিএল জিতেছিলেন রোহিত তখন তাঁর বয়স মাত্র ২২ বছর। ২০০৮ সালে আইপিএল-এর প্রথম বছরে তাঁর দল ডেকান চার্জার্স সাফল্য না পেলেও সর্বাধিক রান (৪০৪) করে অরেঞ্জ ক্যাপ জিতেছিলেন রোহিত। পরের বছর ছিলেন গিলক্রিস্টের ডেপুটি। আর সেইবারই রোহিতের হাতে আসে প্রথম আইপিএল ট্রফি। ব্য়াট হাতেও যথেষ্ট সফল ছিলেন রোহিত। ২০১৯-এ পঞ্চমবার জেতার পর রোহিত অবশ্য বলেছেন এই জয়ের কথা প্রায় ভুলেই গিয়েছিলেন তিনি।

দ্বিতীয় আইপিএল ট্রফি

২০১১ সালে রোহিত শর্মাকে নিলামে দলে নেয় মুম্বই ইন্ডিয়ান্স। নিজের শহরের আইপিএল দলে এসে যেন আরো বেশি করে রোহিতের খেলা খুলেছিল। ২০১২ সালে পান প্রথম আইপিএল শতরান। আর তার পরের বছরই সচিন, জয়সূর্যদের অভিজ্ঞ দলকে নেতৃত্ব দেওয়াার ভার পড়েছিল রোহিতের তরুণ কাঁধে। তারপর বাকিটা ইতিহাস। কলকাতার মাঠে সিএসকের দারুণ শক্তিশালী দলকে হারিয়ে প্রথম আইপিএল ট্রফি জেতার স্বাদ পায় মুম্বই ইন্ডিয়ান্স।

তৃতীয়, চতুর্থ, পঞ্চম ট্রফি

রোহিতের পরের আইপিএল ট্রফি জয় গুলির মধ্যে একটিই সাধারণ বিষয় ছিল। তা হল মহেন্দ্র সিং ধোনি। রবিবার (১২ মে)-এর জয় ধরে মোট তিনবারই রোহিতের বিপক্ষের অধিনায়ক ছিলেন ধোনি। ২০১৫ ও ২০১৯-এ তিনি ধোনির নেতৃত্বাধীন সিএসকে দলের বিরুদ্ধে জয় পেলেন। আর ২০১৭ সালে চেন্নাই না খেললেও ধোনির নেতৃত্বে রাইজিং পুনে সুপার জায়ান্টস উঠেছিল ফাইমনালে। সেইবারও হায়দরাবাদের মাঠেই দোনির দলকে এই ১ রানেই পরাজিত করেছিল রোহিতের মুম্বই ইন্ডিয়ান্স।

কাজেই ধোনি, গোইল, রায়না, বিরাট কোহলি-দের মাথায় রেখেই বলা যায়, এবার সময় এসেছে 'হিটম্য়ান'-এর নতুন নামকরণের - 'মিস্টার আইপিএল' বা 'শ্রীযুক্ত আইপিএল'।