ডিভিলিয়ার্স ও ম্য়াক্সওয়েলের তাণ্ডবে ধরাশায়ী কেকেআর। টানা তিন ম্য়াচ জিতে অপ্রতিরোধ্য বিরাট কোহলির আরসিবি। অপরদিকে পরপর দুটি ম্য়াচ হেরে লিগের লড়াইয়ে আরও পিছিয়ে পড়ল কেকেআর। আইপিএলের গুরুত্বপূর্ণ ম্য়াতে ইয়ন মর্গ্যানের দলকে ৩৮ রানে হারাল বিরাট ব্রিগেড। ম্য়াচে প্রথমে ব্য়াট করে ২০৪ রানের বিশাল স্কোর করে আরসিবি। ৪৯ বলে ৭৮ ও ৩৪ বলে ৭৬ রানের বিধ্বংসী ইনিংস খেলেন ম্য়ক্সওয়েল ও ডিভিলিয়ার্স। জবাবে কেকেআরের করে ১৬৬।

ম্যাচে টসে জিতে প্রথমে ব্য়াট করার সিদ্ধান্ত নেন আরসিবি অধিনায়ক বিরাট কোহলি। কিন্তু শুরুতেই বিরাট ও রজত পাতিদারের উইকেট হারিয়ে চাপে পড়ে যায় আরসিবি। এরপর ইনিংসের রাশ ধরেন দেবদূত পাড়িকল ও গ্লেন ম্যাক্সওয়েল। তৃতীয় উইকেটে ৮৬ রানের পার্টনারশিপ করে এই জুটি। পাড়িকল ধরে খেললেও, নিজের বিধ্বংসী ব্যাটিং চালিয়ে যান ম্যাক্সি। দলের ৯৫ রানের মাথায় আউট হন পাড়িকল। করেন ২৫ রান। এরপর ম্যাক্সওয়েল ডিভিলিয়ার্স কার্যত তাণ্ডব শুরু করেন। দুজনেই অর্ধশতরান করেন। ৪৯ বলে ৭৮ রান করে আউট হন ম্যাক্সওয়েল। আর শেষ পর্যন্ত বিধ্বংসী ৩৪ বলে ৭৬ রানের ইনিংস খেলে নটআউট থাকেন এবিডি। দুজনেই মারেন ৯টি চার ও ৩টি ছক্কা। শেষে ২০ ওভারে ৪ উইকেট হারিয়ে ২০৪ রান করে আরসিবি।

রান তাড়া করতে নেমে শুরুটা ভালো করলেও, নিয়মিত ব্যবধানে উইকেট হারিয়ে চাপ বেড়ে যায় কেকেআরের উপর। ইনিংস শুরু করেও বড় রান করতে বা পার্টনারশিপ গড়তে ব্যর্থ হন কেকেআর ব্যাটসম্য়ানরা। নীতিশ রানা ১৮, শুভমান গিল ২১, রাহুল ত্রিপাঠি ২৫, ইয়ন মর্গ্যান ২৯, শাকিব আল হাসান ২৬ রান করলেও বড় ইনিংস কেউ খেলতে পারেননি। শেষে অফ ফর্মে থাকা আন্দ্রে রাসেল ছন্দে ফিরলেও কেকেআরের জয় এনে দিতে পারেননি তিনি। ২০ বলে ৩১ রান করেন রাসেল। শেষে ২০ ওভারে ৮ উইকেট হারিয়ে ১৬৬ রান করে কেকেআর। ৩৮ রানে ম্যাচ জেতার পাশাপাশি জয়ের হ্যাটট্রিক করল আরসিবি। একইসঙ্গে লিগ টেবিলের শীর্ষস্থান দখল করল বিরাট ব্রিগেড।