ফর্মে ফিরলেন পৃথ্বী-
গত ম্যাচে দায়িত্বজ্ঞানহীন শট খেলে আউট হয়েছিলেন পৃথ্বী শ। আজকেও শুরুতে নড়বড়ে দেখিয়েছিল তাকে। কিন্তু ধীরে ধীরে নিজেকে সামলে নিয়ে ৬৪ রানের ঝকঝকে ইনিংস খেলেন তিনি। 

নো অ্যাপিল-
পৃথ্বী ব্যাটিংয়ের শুরুর দিকে একবার তার ব্যাটের ভেতরের কানায় হালকা ছুঁয়ে ধোনির দস্তানায় জমা পড়ে বল। কিন্তু বোলার সেই ঘটনা মিস করে যান। এমনকি সদাসতর্ক মহেন্দ্র সিং ধোনিও ব্যাপারটি বুঝতেই পারেননি। ফলস্বরূপ ভুগতে হয় চেন্নাইকে। 

দুটি বড়ো পার্টনারশিপ-
দুবাইয়ের পিচ খুব ব্যাটিং সহায়ক ছিল না। তার মধ্যে প্রত্যেক দিল্লি ব্যাটসম্যান ধৈর্য রেখে ব্যাটিং করেন। প্রত্যেক ব্যাটসম্যান দলের রানকে এগিয়ে নিয়ে যেতে সাহায্য করেছেন। ফলস্বরূপ কঠিন পিচেও স্কোরবোর্ডে ১৭৫ রান তোলে দিল্লি।

উড়ন্ত মাহি-
গত ম্যাচের মতো এই ম্যাচেও যথেষ্ট দায়িত্ব নিয়ে ব্যাটিং করছিলেন শ্রেয়স আইয়ার। কিন্তু তার ব্যক্তিগত ২৬ রানের মাথায় তাকে বিট করেন স্যাম করন। তার ব্যাটের কানা ছুঁয়ে বল ফার্স্ট স্লিপ অঞ্চল দিয়ে উড়ে যাচ্ছিল। বাজপাখির মতো ঝাঁপিয়ে পড়ে সেই বল তালুবন্দি করে ধোনি প্রমান করে দেন বয়স হলেও ফিটনেসে আজও তরুণদের কড়া চ্যালেঞ্জ জানাতে পারেন তিনি। 

ফর্মে পীযূষ-
গত ম্যাচে বোলিং করে রাজস্থানের ব্যাটসম্যানদের কাছে বেধড়ক মার খেয়েছিলেন পীযূষ চাওলা। কাল ফর্মে ফেরার ইঙ্গিত দিলেন। ৪ ওভারে ৩৩ রান দিয়ে ফেরালেন দিল্লির দুই ওপেনারকে। 

ফের ব্যর্থ ওপেনার-
চলতি টুর্নামেন্টে ব্যর্থতার ধারা অব্যহত রেখে  যাচ্ছেন চেন্নাই ওপেনার মুরলী বিজয়। রাজস্থান ম্যাচ বাদ দিলে ব্যর্থ শেন ওয়াটসনও। দুজনেই বেশ কিছু বলে খেলে হতাশ করেন কালও। 

একা কুম্ভ ফ্যাফ-
চেন্নাইয়ের তিনটি ম্যাচেই টপ অর্ডারের ব্যর্থতার পর দলকে সামলেছেন দু প্লেসিস। কালও কিছু জীবনদান পেয়ে একাই টানছিলেন চেন্নাই ব্যাটিংকে। ৩৫ বলে ৪৩ করে আউট হন কাগিসো রাবাদার বলে। 

সফল পেস অ্যাটাক-
দিল্লির দুই পেসার এই ম্যাচে দুর্দান্ত বোলিং করেন। রাবাদা এবং নর্থজের বোলিং স্বস্তি দিচ্ছে শ্রেয়স আইয়ারকে। কাল দুজনে নিজেদের ৮ ওভার মিলিয়ে ৪৭ রান দিয়ে নিলেন ৫ উইকেট। 

ব্যর্থ ধোনি-
চলতি টুর্নামেন্টে ব্যাটসম্যান ধোনি এখনও কিছুই করে উঠতে পারেননি। তার ব্যাট কথা বলছে না পুরোনো ছন্দে। কাল করেন ১২ বলে মাত্র ১৫ রান। শেষ দিকে নেমে অনেক বেশি ডট বল খেলে ফেলছেন তিনি। 

রায়নার অভাব-
চলতি টুর্নামেন্টে রায়নার মতো ব্যাটসম্যানের অভাব প্রতি মুহুর্তে ভুগছে চেন্নাই। চেন্নাইকে অসংখ্য ম্যাচ একার হাতে জিতিয়েছেন তিনি। তার অভাব কোনওভাবেই পূরণ করতে পারছে না চেন্নাই।