ভাল শুরু করেও সিএসকে বোলারদের দাপটে ডু অর ডাই ম্যাচে বড় স্কোর করতে ব্যর্থ হল কিংস ইলেভেন পঞ্জাব। কেএএল রাহুলের দলের হয়ে একমাত্র ৬২ রানের লড়াকু ইনিংস খেলেলেন দীপক হুডা। চেন্নাইয়ের হয়ে সর্বোচ্চ ৩টি উইকেট নেন লুঙ্গি এনগিডি। এদিন টসে জিতে ফিল্ডিংয়ের সিদ্ধান্ত নেন সিএসকে অধিনায়ক এমএস ধোনি। পঞ্জাবের হয়ে এদিন ওপেন করতে নেমে শুরুটা ভালই করেন দুই ওপেনার কেএল রাহুল ও মায়াঙ্ক আগরওয়াল। বেশ কয়েকটি আক্রমণাত্ব শটও খেলেন তারা। কিন্তু ষষ্ঠ ওভারে ভাঙে তাদের পার্টনারশিপ। লুঙ্গি এনগিডির বলে বোল্ড হন মায়াঙ্ক আগরওয়াল। ২৬ রান করেন তিনি। ৬ ওভারের পাওয়ার প্লের শেষ পঞ্জাবের স্কোর দাঁড়ায় ৫৩ রানে ১ উইকেট।

প্রথম উইকেট পড়ার পরই ম্যাচে ফেরে সিএসকে। আঁটোসাটো বল করতে শুরু করেন শার্দুল ঠাকুর, লুঙ্গি এনগিডি, ইমরান তাহিররা। ক্রিস গেইল ও কেএল রাহুল পার্টনারশিপ গড়ার চেষ্টা করলেও তারা ব্যর্থ হন। নবম ওভারে দ্বিতীয় উইকেট পড়ে পঞ্জাবের। কেএল রাহুলকে বোল্ড করেন এনগিডি। ২৯ রান করেন পঞ্জাব অধিনায়ক। ১০ ওভার শেষে পঞ্জাবের স্কোর দাঁড়ায় ৬৫ রানে ২ উইকেট। এরপর নিকোলাস পুরান নামলেও তিনি বেশিক্ষণ ক্রিজে থাকতে পারেননি ১১ তম ওভারেই ২ রান করে শার্দুল ঠাকুরের শিকার হন তিনি। ১২ তম ওভারেই চতুর্থ উইকেটের পতন হয় পঞ্জাবের। ১২ রান করে ইমরান তাহিরের শিকার হন তিনি। এরপর পঞ্জাবের ইনিংস এগিয়ে নিয়ে যান মনদীপ সিং ও দীপক হুডা। ১৫ ওভারের শেষে পঞ্জাবেরস্কোর দাঁড়ায় ৯৫ রানে ৪ উইকেট।

শেষ ৫ ওভারে রানের গতিবেগ বাড়ানোর চেষ্টা করেন দুই ব্যাটসম্যাম। ১৬ তম ওভারে আসে ১২ রান। ১৭ তম ওভারে পঞ্চম উইকেট পড়ে পঞ্জাবের। রবীন্দ্র জাদেজার বলে ১৪ রান করে আউট হন মনদীপ সিং। ১৮ তম ওভারে আরও একটি উইকেট পরে পঞ্জাবের। জিমি নিশামকে ২ রানে আউট করে নিজের তৃতীয় উইকেট নেন এনগিডি। অপরদিক থেকে আক্রমণাত্বক ব্যাটিং চালিয়ে যান দীপক হুডা। ১৮ ওভার শেষে পঞ্জাবের স্কোর দাঁড়ায় ১২৯ রানে ৬ উইকেট। ১৯ তম ওভার নিজের হাফ সেঞ্চুরি পূরণ করেন দীপক হুডা। মাত্র ২৬ বলে ৫০ রান করেন তিনি। ১৯ ওভার শেষে পঞ্জাবের স্কোর দাঁড়ায় ১৩৯। শেষে ওভারে ১৪ রান আসে পঞ্জাবের। ২০ ওভার শেষে পঞ্জাবের স্কোর দাঁড়ায় ১৫৩ রানে ৬ উইকেট। চেন্নাই সুপার কিংসের টার্গেট ১৫৪ রান।