জয় দিয়ে ২০২১ মরসুমের আইপিএল অভিযান শুরু করল কলকাতা নাইট রাইডার্স। রুদ্ধশ্বাস ম্য়াচে সানরাইজার্স হায়দরবাদকে ১০ রানে হারাল ইয়ন মর্গ্যান ব্রিগেড। প্রথমে ব্য়াট করে ১৮৭ রান করে কেকেআর। দলের হয়ে অনবদ্য ইনিংস খেলেন নীতিশ রানা ও রাহুল ত্রিপাঠী। জবাবে রান তাড়া করতে নেমে হায়দরাবাদের হয়েও জোড়া অর্ধশতররান করেন জনি বেয়ারস্টো ও মণীশ পাণ্ডে। কিন্তু শেষ পর্যন্ত জয়ের হাসি হাসে কলকাতা নাইট রাইডার্স।

এদিন টসে জিতে ফিল্ডিংয়ের সিদ্ধান্ত নেয় সানরাইজার্স অধিনায়ক ডেভিড ওয়ার্নার। দুরন্ত শুরু করেন কেকেআরের দুই ওপেনার নীতিশ রানা ও শুভমান গিল। প্রথম উইকেটে ৫৩ রানের পার্টনারশিপব করেন দুজন। তারপর ব্যক্তিগত ১৫ রানে আউট হন গিল। এরপর কেকেআরের ইনিংসের রাশ ধরেন রাহুল ত্রিপাঠী ও নীতিশ রানা। দ্বিতীয় উইকেটে ৯৩ রানের পার্ট শিপ করেন তারা। অর্ধশতরান করেন রানা ও ত্রিপাঠী। একাধিক চার, ছক্কা হাকান তারা। শেষে ২৯ বলে ৫৩ রান করে আউট হন ত্রিপাঠী। পার্টনারশিপ ভাঙার পরই একের পর উইকেটে হারিয়ে শেষের দিকে রানের গড় কমে যায় কেকেআরের। ব্য়াট হাতে ব্যর্থ হন আন্দ্রে রাসেল, ইয়ন মর্গ্যানরা। ৫৬ বলে ৮০ রান করেন রানা।  শেষে দীনেশ কার্তিক ৯ বল ২২ রান করে। হায়দরাবাদের হয়ে ২টি করে উইকেট পান বনি ও রাশিদ, একটি করে উইকেট পান ভুবি ও নটরাজন। ২০ ওভারে ৬ উইকেট হারিয়ে ১৮৭ রান করল কেকেআর। সানরাইজার্সের টার্গেট  ১৮৮ রান।

রান তাড়া করতে নেমে শুরুতেই ২ উইকেট হারিয়ে চাপে পড়ে যায় হায়দরাবাদ। পরপর আউট হয়ে যান ওয়ার্নার ও ঋদ্ধিমান। এরপর হায়দরাবাদের ইনিংসের রাশ ধরেন জনি বেয়ারস্টো ও মণীশ পাণ্ডে। ৯২ রানের পার্টনারশিপ করেন দুই তারকা ব্যাটসম্যান। একের পর এক আক্রমণাত্মক শট খেলেন তারা। অর্ধশতরান করেন দুজনেই। কিন্তু ৪০ বলে ৫৫ রান করে বেয়ারস্টো আউট হতেই চাপ বাড়ে সানরাইজার্সের উপর। একদিকে থেকে মণীশ পাণ্ডে নিজের ইনিংস চালিয়ে গেলেও শেষ পর্যন্ত দলকে জয় এনে দিতে ব্যর্থ হন তিনি। শেষে স্লগ ওভারে দুরন্ত বল করেন কেকেআর বোলাররা। ৬১ রানে অপরাজিত থেকে যান তিনি। শেষে ১৭৭ রানে শেষ হয় হায়দরাবাদের ইনিংস। ১০ রানে ম্যা জেতে কেকেআর। কেকেআরের হয়ে প্রসিদ্ধ কৃষ্ণা ২টি ও একটি করে উইকেট পান শাকিব, কামিন্স ও রাসেল। জয় দিয়ে মরসুম শুরু করে খুশি নাইটরা।