দেশের মাটিতে শুরু করেও করোনার থাবায় মাঝপথে বন্ধ করতে হয়েছিল আইপিএল ২০২১। কেকেআর, সিএসকে, দিল্লি ক্যাপিটালস, সানরাইজার্স হায়দরাবাদ দলে ক্রিকেটার সহ সাপোর্টিং স্টাফরা করোনা আক্রান্ত হওয়ার পরই প্রতিযোগিতা স্থগিত ঘোষণা করেছিল বিসিসিআই। তবে আইপিএলের ফাইনাল সহ ৩১টি ম্যাচ আয়োজন করার বিষয়ে বদ্ধপরিকর ছিল সৌরভ গঙ্গোপাধ্যায়ের বোর্ড। তবে অবশেষে শনিবার বিসিসিআইয়ের বিশেষ সাধারণ সভায় সিদ্ধান্ত গৃহীত হয় যে আইপিএল ২০২১-এর বাকি পর্ব আয়োজিত হবে আরব আমারিশাহিতে।

২০২০ সালের আইপিএলও স্থগিত হয়ে গিয়েছিল। তবে অনেক টালবাহানার পর অস্ট্রেলিয়ায় টি২০ বিশ্বকাপ বাতিলল হতেই খুলে গিয়েছিল আইপিএলের দরজা। করোনা আবহে সাফল্যের সঙ্গে সেই প্রতিযোগিতা আয়োজন করেছিল ইউএই। তাই এবারও আইপিএল মাঝপথে বন্ধ হওয়ার পর বোর্ডের বিচারে প্রথম পছন্দ ছিল মরু দেশ। শেষমেশ তাতেই শীলমোহর দেয় বিসিসিআই। বিসিসিআই সহ সভাপতি রাজীব শুক্লা জানিয়েছিলেন, সেপ্টেম্বরের তৃতীয় সপ্তাহ থেকে অক্টোবরের দ্বিতীয় সপ্তাহ মোট ২৫ দিনের মধ্যে প্রতিযোগিতার বাকি অংশ আরব আমিরশাহিতে আয়োজিত হবে।

সময় বললেও, সেদিন কোনও দিনক্ষণ জানানো হয়নি বিসিসিআইয়ের তরফে। অবশেষে সরকারিভাবে ঘোষণা না করা হলেও, জানা যাচ্ছে, ১৭ সেপ্টেম্বর থেকে শুরু হতে চলেছে আইপিএল ২০২১-এর দ্বিতীয় পর্ব। আর ফাইনাল আয়োজিত হবে ১০ অক্টোবর। কোন কোন দেশের ক্রিকেটারদের পাওয়া যাবে তা নিয়েও আলোচনা শুরু করেছে বিসিসিআই। ১৯ সেপ্টেম্বর পর্যন্ত ক্যারেবিয়ান প্রিমিয়ার লিগ থাকায়, তাদের আবেদন করেছে বিসিসিআই প্রতিযোগিতা যদি আগে শুরু করে ১৭ সেপ্টেম্বরের ১০ দিন আগে শেষ করা যায়। সব মিলিয়ে আইপিএল নিয়ে কোমড় বেঁধে মাঠে নেমে পড়েছে ভারতীয় ক্রিকেট বোর্ড।