আইপিএল ২০২০-এর নিজেদের শেষ ও অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ ম্যাচে বিরাট কোহলির আরসিবিকে ৬ উইকেটে হারাল দিল্লি ক্যাপিটালস। অজিঙ্ক রাহানের বুদ্ধিদীপ্ত ব্যাটিংয়ে ভর করে টুর্নামেন্টের প্লে-অফে পৌঁছে গেলেন শ্রেয়স আইয়াররা। তালিকার দ্বিতীয় স্থানে লিগ পর্যায় শেষ করল রাজধানীর দল। ম্যাচ হেরেও নেট রান রেটে কেকেআরের চেয়ে ভালো অবস্থায় থাকায় প্লে-অফে নিশ্চিত করলো আরসিবিও।

কাল রয়্যাল চ্যালেঞ্জার্স ব্যাঙ্গালোরের বিরুদ্ধে টসে জিতে আগে ফিল্ডিং করার সিদ্ধান্ত নিয়েছিল শ্রেয়স আইয়ার। আবুধাবির শেখ জায়েদ স্টেডিয়ামে রান তাড়া করে ম্যাচ জেতা সম্ভব বলে মনে করেছিলেন শ্রেয়স আইয়ার। শিশিরের জেরে রাতে বোলারদের পক্ষে বল গ্রিপ করা মুশকিল হবে সেই ব্যাপারটি সকলের কাছেই স্পষ্ট, ফলে দু বার ভাবতে হয়নি দিল্লি অধিনায়ককে। 

তা বুঝেই দুর্দান্ত পারফরম্যান্স করেন দিল্লি ক্যাপিটালসের বোলাররা। দুর্দান্ত পারফরম্যান্স করেন দিল্লির পেসার কাগিসো রাবাদা ও এনরিক নর্তজে। আরও একবার ব্যর্থ আরসিবি অধিনায়ক বিরাট কোহলি। বিধ্বংসী হয়ে ওঠার লক্ষণ দেখালেও দ্রুতই ফেরেন এবি ডিভিলিয়ার্সও। কেবল ৪১ বলে ৫০ রানের লড়াকু ইনিংস খেলেন আরসিবি ওপেনার দেবদত্ত পাড়িক্কল। টুর্নামেন্টে পঞ্চম অর্ধশতরান এল তাঁর ব্যাট থেকে। ২৪ বলে ২৯ রান করেছেন বিরাট কোহলি। ২১ বলে ৩৫ রান করেছেন এবি ডিভিলিয়ার্স। ১১ বললে ১৭ রান করেছেন শিবম দুবে।

১৫৩ রানের লক্ষ্য তাড়া করতে নেমে আজও ব্যাট হাতে ব্যর্থ হন দিল্লি ক্যাপিটালসের ওপেনার পৃথ্বী শ। তিনি মাত্র ৯ রান করে আউট হন। এরপর শিখর ধাওয়ান ও অজিঙ্ক রাহানের মধ্যে ৮৮ রানের পার্টনারশিপ হয়। ৫৪ রানের ঝোড়ো ইনিংস খেলেন ধাওয়ান। গোটা টুর্নামেন্টে তেমন কিছু প্রভাব না ফেলতে পারলেও দলের সবচেয়ে বেশি দরকারের সময় ৬০ রানের দৃষ্টিনন্দন ইনিংস খেলেন রাহানে। শেষ পর্যন্ত ক্রিজে থেকে দিল্লিকে ম্যাচ জিতিয়ে মাঠ ছাড়েন ঋষভ পন্থ ও মার্কাস স্টোইনিস। আরসিবির হয়ে দুর্দান্ত বোলিং করেন বাংলার শাহবাজ আহমেদ। ২৬ রান দিয়ে আইয়ার ও ধাওয়ানকে আউট করেন তিনি।