দুবাইতে চলছে আরসিবি ও সানরাইজার্স হায়দরাবাদের সুপার ফাইট। এদিন ম্য়াচে প্রথমে টসে জিতে ফিল্ডিংয়ের সিদ্ধান্ত নেন ডেভিড ওয়ার্নার। আরসিবির হয়ে ওপেন করতে নামেন অ্যারন ফিঞ্চ ও দেবদূত পাড়িকল। আর অভিষেকেই দূরন্ত শুরু করেন কর্ণাটকি ব্যাটসম্যান পাড়িকল। একের পর এক বাউন্ডারি মেরে সানরাইজার্স বোলারদের উপর চাপ সৃষ্টি করে বোলারদের উপর। অ্যারন ফিঞ্চের সঙ্গে প্রথম ১০ ওভারে বিনা উইকেটে ৮৬ রানের পার্টনারশিপও করেন আরসিবির দুই ওপেনার। অভিষেকেই অর্ধশতরান করে সকলের প্রশংসা কুড়ান দেবদূত পাড়িকল। তাকে যোগ্য সঙ্গত দেন অজি তারকা অ্যারন ফিঞ্চ।

Live Scorecard-এ নজর রাখতে ক্লিক করুন এখানে

ম্যাচর ১১ তম ওভারে বিজয় শংকরের বলে আউট হনে দেবদূত পাড়িকল। তিনি করেন ৪২ বলে ৫৬ রান। তার ইনিংসে মোট আটটি চার মারেন তিনি। ৯০ রানে প্রথম উইকেট পড়ে ব্যাঙ্গালোরের। দ্বিতীয় উইকেটের জন্য বেশিক্ষণ অপকেক্ষা করতে হয়নি ডেভিড ওয়ার্নারকে। অভিষেক শর্মার পরের ওভারেই এলবিডব্লু হয়ে প্যাভেলিয়নে ফেরত যান অ্যারন ফিঞ্চ। তিনি করেন ২৯ রান। পরপর দুই উইকেট পেয়ে ম্য়াচে ফিরে আসে সানরাইজার্স হায়দরাবাদ। ক্রিজে আসেন দুই নতুন ব্যাটসম্য়ান আরসিবি অধিনায়ক বিরাট কোহলি ও প্রোটিয়া তরা এবি ডিভিলিয়ার্স। কোহলিকে চাপে রাখার জন্য সেই সময় রাশিদ কানকে দিয়ে দুটি ওভার বলও করান ওয়ার্নার। কিন্তু কোনও সফলতা আসেনি।  ১৫ ওভার শেষে আরসিবির স্কোর দাঁড়ায় ২ উউকেটে ১১৬ রান। ৪ ওভারে ৩১ রান দিয়ে নিজের স্পেল শেষ করেন রশিদ খান।

কোন ওভারে রানে গতি কেমন ছিল, বার গ্রাফ থেকে ওয়াগন হুইল ও স্পাইডার প্রযুক্তি-র ব্যাখ্যা, ক্লিক করুন

পরপর দুই উইকেটে হারিয়ে ইনিংসের রাশ ধরার চেষ্টা করেন কোহলি ও ডিভিলিয়ার্স। কিন্তু ১৬ তম ওভারে হায়দরাবাদের বোলার নটরাজনকে ছয় মারতে গিয়ে বাউন্ডারিতে ক্যাচ আউট হন কোহলি। ১৪ রান করেন বিরাট। ডিভিলিয়ার্স ও বিরাট ৩৩ রানের পার্টনারশিপ করেন। ১৬ ওবার শেষে আরসিবির স্কোর দাঁড়ায় ৩ উইকেটে ১২৪। ১৭ তম ওভারে ভুবনেশ্বর কুমারকে একটি চার মারলেও, আঁটোসাটো বল করেন তিনি। ওভার শেষে স্কোর দাঁড়ায় ১৩২। ১৯ তম ওভারে ৯ রান করে আরসিবি। ১৯ তম ওভারে নিজের বিধ্বংসী রূপ ধরেন এবিডি। পরপর দুটি ছয় মারেন তিনি। ১৯ ওভারে শেষে ব্যাঙ্গালোরের স্কোর দাঁড়ায় ১৫৫ রান। ২০ তম ওভারে নিজের অর্ধশতরান পূরণ করেন ডিভিলিয়ার্স। যদিও তারপরেই রান আউট হন তিনি। ৩০ বলে ৫১  রান করে আউট হন এবিডি। ২০ ওভার শেষে ৫ উইকেটে ১৬৩ রানে শেষ হয় আরসিবির ইনিংস। সানরাইজার্স হায়দরাবাদের টার্গেট ১৬৪।