সোমবারই করোনা আক্রান্ত হয়েছিলেন কেকেআরের দুই প্লেয়ার বরুণ চক্রবর্তী ও সন্দীপ ওয়াড়িয়র। যার কারণে বাতিল হয়ে যায় কেকেআর ও আরসিবি ম্যাচ। মারণ ভাইরাস থাবা বসায় সিএসকে শিবিরে। আক্রান্ত হন দলের সিইও কাশী বিশ্বনাথন, বোলিং কোচ লক্ষ্মীপতি বালাজি ও এক বাসকর্মী। আক্রান্ত হয়েছেন দিল্লি স্টেডিয়ামের ৫ মাঠ কর্মীও। তারপরই আতঙ্ক গ্রাস করেছিল আইপিএল জুড়ে। অবশেষে ঋদ্ধিমান সাহা ও অমিত মিশ্র করোনা আক্রান্ত হওয়ায় প্রতিযোগিতা স্থগিত রাখার সিদ্ধান্ত নেয় বিসিসিআই ও আইপিএলের গভর্নিং কাউন্সিল।

মঙ্গলবারই জানা খবর সামনে আসে যে সানরাইজার্স হায়দরাবাদের ঋদ্ধিমান সাহা ও দিল্লি ক্যাপিটালসের অমিত মিশ্র করোনা আক্রান্ত। ঋদ্ধির জ্বর ছিল গত চারদিন ধরে। সোমবার রাতে করোনা পরীক্ষা হয় তাঁর। তার ফল পজিটিভ আসে। সঙ্গে সঙ্গে নিভৃতবাসে পাঠানো হয় তাঁকে। হায়দরাবাদ দলকে কঠোর নিভৃতবাসে পাঠানো হয়। অমিত মিশ্রের বিসিসিআইয়ের নিয়মমাফিক করোনা পরীক্ষা করার সময় ফল পজেটিভ আসে। তাকেও তড়িঘড়ি আইসোলেশনে পাঠানো হয়েছে। আতঙ্কে রয়েছে গোটা দিল্লি ক্যাপিটালস দলও।

দেশের ভয়াবহ করোনা পরিস্থিতিতে আইপিএল করা নিয়ে বেশ কয়েক দিন ধরেই উঠছিল প্রশ্ন। আওয়াজ তুলেছিল প্রাক্তন ক্রিকেটার অ্যাডাম গিলক্রিস্ট ও শোয়েব আখতারদের মত ক্রিকেটাররা। তারপরও আইপিএল চালিয়ে যাওয়ার পক্ষপাতি ছিল বিসিসিআই। কিন্তু কেকেআর, সিএসকে, দিল্লি, হায়দরাবাদ একের পর এক দলে করোনার থাবা বসানোয় প্লেয়ারজের নিতে ঝুঁকি নিতে নারাজ কর্তৃপক্ষ। বাধ্য হয়েইপিএল বন্ধ করার সিদ্ধান্ত নিল বিসিসিআই।