শাজাহান আলি,ঝাড়গ্রাম: রবিবার ঝাড়গ্রাম শহরে কর্মী বৈঠকে হাজির হয়েছিলেন বিজেপি নেতা কৈলাশ বিজয় বর্গীয় ও মুকুল রায় ৷ কর্মীদের সঙ্গে বৈঠকের পরে জঙ্গলমহলের পরিস্থিতি নিয়ে সাংবাদিক সম্মেলনে ছত্রধরের নেতা হওয়াকে কটাক্ষ করেন ৷ সেই সঙ্গে তাঁর দাবি- ২১ এর নির্বাচনে বিজেপি সরকার তৈরি করবে রাজ্যে, এই সরকারের মতো ৩০ শতাংশের নয়,১০০ শতাংশ মানুষের সরকার গড়বে বিজেপি ৷

ফের বিজেপি কর্মীদের উপর হামলা, গাঙ্গুলি বাগানে কাঠগড়ায় তৃণমূল

রবিবার ঝাড়গ্রাম জেলার কর্মীদের নিয়ে বৈঠক করতে জঙ্গলমহলের পুরনো কৌশলী নেতা মুকুল রায়কে নিয়ে হাজির হয়েছিলেন বিজেপি নেতা কৈলাশ বিজয় বর্গীয় ৷ ঝাড়গ্রাম শহরে কর্মী বৈঠক সেরে তিনি কয়েকজন বিভিন্ন রাজনৈতিক দলের কর্মীকে বিজেপিতে যোগদান করান পতাকা তুলে দিয়ে  ৷ পরে সাংবাদিক সম্মেলন করেন ৷  এদিন মুকুল রায় বলেন,  "২০০৮-২০১০ সালের আমরা দেখেছি ঝাড়গ্রামকে পিছিয়ে দেওয়ার পেছনে কে ছিল ৷ কারা সন্ত্রাস করেছিল ৷ সেই তাদের কাউকে ধরে রাতারাতি পদে বসিয়ে দিলে নেতা হয়ে যায় না ৷ ছত্রধরের ভূমিকা ও জ্ঞানেশ্বরীর ঘটনা আমরা কেউই ভুলিনি ৷ এই সমস্ত লোককে পদে বসিয়ে দিলেই জঙ্গলমহলের মনের প্রিয় মানুষ হয়ে যেতে পারেনা ৷ ঝাড়গ্রামের মানুষ বিচার করবে জঙ্গলমহলের উন্নয়নের জন্য কারা লড়াই করছে ৷" 

এক ছোলার ডালে সারা দেশ, ইন্ডিয়া বুক অব রেকর্ডসে রূপজিৎ

এদিন কৈলাশ বিজয় বর্গীয় আরও একধাপ এগিয়ে ছত্রধরকে মাওবাদী তকমা দয়ে দেন ৷ তিনি বলেন - " একজন মাওবাদী কে টিএমসি জামিনে মুক্ত করে সম্মানজনক পদে বসিয়েছে ৷ যে পুলিশের খাতায় ওয়ান্টেড ছিল তাকে পুলিশ সুরক্ষা দিয়ে চারদিকে ঘোরাচ্ছে ৷ আর সে বিজেপির কর্মীদের জোর করে তৃণমূলে যোগদান করাচ্ছেন ৷ জঙ্গলমহলের মানুষ এটা মেনে নিতে পারেনা ৷ মনে রাখবেন ২০২১ সালে আমাদের সরকার তৈরি হবে ৷ তখন তৃণমূলের মতো ৩০ শতাংশ লোকজনের সরকার হবে না ৷ ১০০ শতাংশ লোকজনের জন্য সরকার তৈরি করবে ৷ "

"