ঝাড়খণ্ড থেকে এ রাজ্যে ঢুকে গুরুতর অসুস্থ হয়ে পড়েছে সে। শরীরে গভীর ক্ষত নিয়ে ঘরে বেড়াচ্ছিল এদিক-সেদিক। অবশেষে ঘুমপাড়ানি গুলিতে ঘায়েল করে একটি হাতিকে চিকিৎসার জন্য ঝাড়গ্রাম চিড়িয়াখানায় নিয়ে এলেন বনদপ্তরের কর্মীরা।

কখনও সবজি খেতে নষ্ট করে দিচ্ছিল তো কখনও আবার রাস্তা আটকে দিব্য়ি চলছিল ভুরিভোজ। গত কয়েক সপ্তাহ ধরেই হাতির কাণ্ডকারখানায় নাজেহাল হচ্ছিলেন ঝাড়গ্রামের জামবনি এলাকার বাসিন্দারা। তবে হাতির হামলার প্রাণহানির ঘটনা ঘটে। বরং গতিবিধি দেখে হাতিটি যে সুস্থ নয়, তা গ্রামবাসীরা বুঝতে পেরেছিলেন বলে জানা গিয়েছে।  খবর দেওয়া হয় বনদপ্তরে।

মঙ্গলবার সকালে জামবনির আমতলীয়া জঙ্গল সংলগ্ন গ্রামে হাজির হয় বনদপ্তরের বিশেষ টিম। হাতিটিকে হুলা পার্টির সাহায্যে ঘিরে ফেলে ঘুমপাড়ানি গুলি চালানো হয়। এরপর ঘুমন্ত অবস্থায় হাতিটিকে চিকিৎসার জন্য নিয়ে যাওয়া হয় ঝাড়গ্রাম চিড়িয়াখানায়। হাতিটির পায়ে ও শুড়ে গভীর ক্ষত আছে বলে জানা গিয়েছে। চিকিৎসার পর সিদ্ধান্ত নেওয়য়া হবে হাতিটি কোথায় রাখা হবে। তেমনটাই জানিয়েছেন বনদপ্তরের এক আধিকারিকরা।

উল্লেখ্য, দিন কয়েক আগে এই জামবনিতেই উল্টো ছবি দেখা গিয়েছিল। সেবার স্থানীয় টুলিবর গ্রাম ঢুকে পড়েছিল একটি হাতি। কিন্তু এলাকার কোনও ক্ষয়ক্ষতি হয়নি, বরং দুলকি চালে গ্রামের মেঠো পথে ধরে হাতিটি জঙ্গলের দিকেই যাওয়ার চেষ্টা করছিল বলে জানা গিয়েছে। আর তাতেই সাহস বেড়ে যায় গ্রামবাসীদের। হাতিটি রীতিমতো উত্যক্ত করেন তাঁরা। সেই ঘটনার ভিডিও আবার ভাইরাল হয়ে যায় সোশ্যাল মি়ডিয়ায়।