আশঙ্কার কথা শুনিয়েছিলেন চিকিৎসকরা। করোনার হাত থেকে বাঁচতে গোমূত্র খেয়ে এবার বিপদে পড়লেন এক যুবক। এতটাই অসুস্থ হয়ে পড়েছেন যে, তাঁকে হাসপাতালে ভর্তি করতে হয়েছে। ঘটনাটি ঘটেছে ঝাড়গ্রামে।

আরও পড়ুন: আসল বলে নকল মাস্ক বিক্রি, কীভাবে চলছে জাল কারবার

ওই যুবকের নাম শিবু গড়াই। কাপড়ের ব্যবসা করেন তিনি, থাকেন ঝাড়গ্রাম শহরের জামদা এলাকায়। সপ্তাহ দুয়েক আগে বন্ধুদের সঙ্গে মায়াপুরে বেড়াতে দিয়েছিলেন শিবু। সেখান থেকে করোনার প্রতিষেধক হিসেবে বোতল করে চারশো মিলিগ্রাম গোমূত্র কিনে আনেন তিনি। পরিবারের লোকের দাবি, মঙ্গলবার সন্ধ্যায় সেই বোতল থেকে ছিপিতে করে গোমূত্র পান করে ফেলেন ওই যুবক। আর তাতেই ঘটে বিপত্তি। গুরুতর অসুস্থ হয়ে পড়েন শিবু। তড়িঘড়ি তাঁকে ঝাড়গ্রাম সুপার স্পেশালিটি হাসপাতালে নিয়ে যান পরিবারের লোকেরা। রোগীকে ভর্তি করে নিয়েছেন চিকিৎসকরা, শুরু হয়েছে চিকিৎসাও।   

আরও পড়ুন: করোনা নির্দেশকে 'বুড়ো আঙুল' প্রধানশিক্ষিকার, নদিয়ায় সরকারি স্কুলে চলছে পঠনপাঠন

কিন্তু করোনা প্রতিষেধক হিসেবে গোমূত্র কেন পান করলেন শিবু গড়াই? শরীরে ভাইরাসের সংক্রমণ ঠেকাতে গোমূত্রকে কার্যত ওষুধ হিসেবে ব্যবহার করার নিদান দিয়েছেন হিন্দু মহাসভার কর্মীরা। তারজেরে রাজ্য জুড়ে গোমূত্র পান করার হিড়িক পড়ে গিয়েছে। মানুষকে 'সচেতন' করতে আসরে নেমেছেন বিজেপি নেতারা। গোমূত্র বিলি করা হয়েছে খাস কলকাতাতেও। এসব দেখেই প্রভাবিত হন শিবুও। তিনি বলেন, 'লোকের মুখে শুনে ও টিভিতে দেখেই গোমূত্র পান করেছিলাম। কিন্তু এক ছিপি খাওয়ার পরে বুকে জ্বালা ও পেটের যন্ত্রণা শুরু হল।'  ঝাড়গ্রাম জেলার মুখ্য স্বাস্থ্য আধিকারিক প্রকাশ মৃধার বক্তব্য, মল কিংবা মূত্রে বর্জ্য থেকে শরীরে সংক্রমণ ছড়ানোর সম্ভাবনা  থাকে। তা থেকে সম্ভবত কোনও সমস্যা হয়েছে। এই ধরণে বিষয়ে কোনও বৈজ্ঞানিক ভিত্তি নেই।'