শাহাজাহান আলি, মেদিনীপুর: করোনার আতঙ্ক, কোয়ারেন্টাইনে থাকতে গিয়ে বন্যজন্তুদের হামলা মুখে না পড়তে হয়! ভয়ে জঙ্গল লাগোয়া তাঁবুতে পালা করে রাত জাগছেন সাতজন পরিযায়ী শ্রমিক। ঘটনাটি ঘটেছে ঝাড়গ্রামের বেলাপাহাড়িতে। প্রশাসনের ভূমিকায় ক্ষোভ বাড়ছে স্থানীয়দের।

আরও পড়ুন: পরিত্যক্ত গোডাউনে কোয়ারেন্টাইন, বিষধর সাপের কামড়ে মৃত্যু পরিযায়ী শ্রমিকের

ঝাড়গ্রাম জেলার বেলপাহাড়ি থানার প্রত্যন্ত গ্রাম শিমূলডাঙা। এই গ্রাম থেকে সাতজন শ্রমিকের কাজ করতে যান পড়শি রাজ্যে ওড়িশায়। ফেরার পর করোনা আতঙ্কে ওই সাতজনকে গ্রামে ঢুকতে দেননি স্থানীয় প্রতিবেশীরা। সাফ জানিয়ে দেওয়া হয়, সরকারি নিয়ম মেনে চোদ্দ দিন থাকতে হবে কোয়ারেন্টাইনে। কিন্তু বাড়ির বাইরে থাকবেন কোথায়? প্রশাসন, এমনকী এলাকার জনপ্রতিনিধিকে জানিয়েও কোনও লাভ হয়নি বলে অভিযোগ। নিরুপায় হয়ে শেষপর্যন্ত আশ্রয় নিতে হয় গ্রাম থেকে অনেকটা দূরে, জঙ্গল লাগোয়া তাঁবুতে। 

জানা গিয়েছে, জঙ্গলের লাগোয়া যে এলাকায় তাঁবু ঘাটিয়ে থাকছেন পরিযায়ী শ্রমিকেরা, সেই এলাকায় বছরভর হাতি ও হায়নার আনাগোনা লেগেই থাকে। বন্যজন্তুদের হাত থেকে বাঁচতে পালা করে রাত জাগতে হচ্ছে তাঁদের। ভিন রাজ্য থেকে ফিরে এখন তাঁবুতে থাকছেন শিমূলডাঙা গ্রামের বাসিন্দা রতন মান্ডি। তিনি বলেন, ' একজন এসে ছবি তুলে নিয়ে গিয়েছে। বলেছে, পারলে একবার হাসপাতালে গিয়ে পরীক্ষা করে নিও। কিন্তু প্রশাসনের তরফে কেউ খোঁজ খবর করেনি। গ্রাম থেকে কয়েকজন এসে চারজনের খাবার দিয়ে যায়। সেটাই সাতজনে ভাগ করে খাই।'

আরও পড়ুন: আনলক পর্বে দলবদল, করোনা আতঙ্কের মাঝেই ঘর গোছালো বিজেপি ও তৃণমূল

স্রেফ বেলপাহাড়িতেই নয়, ঝাড়গ্রাম জেলার বিভিন্ন প্রান্তে খোলা স্থানে তাঁবু খাটিয়ে থাকছেন ভিন রাজ্য থেকে আসা পরিযায়ী শ্রমিকেরা। প্রশাসনের তরফে তাঁদের জন্য কোনও কোয়ারেন্টাইন শিবিরের ব্যবস্থা করা হয়নি বলে অভিযোগ। এ বিষয়ে মুখ খুলতে চাননি পুলিশ কিংবা প্রশাসনের আধিকারিক।