বাঁক নিতে গিয়ে নিয়ন্ত্রণ হারান চালক। এক বাইক আরোহীকে সজোরে ধাক্কা মারল বাস। ঘটনাকে কেন্দ্র করে তুমুল উত্তেজনা ছড়াল ঝাড়গ্রাম শহরে।  ঘাতক বাসে ভাঙচুর চালালেন স্থানীয় বাসিন্দারা, চলল পথ অবরোধও।  গুরুতর  আহত অবস্থায় ওই বাইক আরোহী ভর্তি ঝাড়গ্রাম সুপার স্পেশালিটি হাসপাতালে। 

আহতের নাম তীর্থঙ্কর মহালদার। ঝাড়গ্রামের শহরের বাছুরডোবা এলাকায় থাকেন বছর বাইশের ওই যুবক।  শনিবার সকালে শহরের ননীবালা বয়েজ স্কুল লাগোয়া মোড়ে দুর্ঘটনার কবলে পড়েন তিনি। প্রত্যক্ষদর্শীরা জানিয়েছে, মেদিনীপুর থেকে ঝাড়গ্রামে আসছিল যাত্রীবাহী একটি বাস। ননীবালা বয়েজ স্কুল লাগোয়া মোড়ে বাঁক নিতে দিয়ে বাসের নিয়ন্ত্রণ হারান চালক। আর ঠিক তখনই উল্টো দিকে থেকে বাইক চালিয়ে আসছিল তীর্থঙ্কর। বাসটি সজোরে ধাক্কা মারে তাঁকে।  দুর্ঘটনার পরিস্থিতি উত্তপ্ত হয়ে ওঠে। ঘাতক বাস ব্যাপক ভাঙচুর চালান স্থানীয় বাসিন্দারা।  শুরু হয়ে পথ অবরোধও। বিক্ষোভকারীদের বক্তব্য, চালকের ভুলেই দুর্ঘটনা ঘটেছে।  প্রায় ঘণ্টা দেড়ের ঝাড়গ্রাম শহরের ব্যস্ততম ওই রাস্তায় বন্ধ থাকে যান চলাচল। শেষপর্যন্ত পুলিশ গিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে। তবে দুর্ঘটনার পর বাস থেকে নামার যাওয়ায়  যাত্রীদের কোনও ক্ষতি হয়নি। গুরুতর আহত অবস্থায় তীর্থঙ্কর ভর্তি করা হয়েছে ঝাড়গ্রাম সুপার স্পেশালিটি হাসপাতালে।

আরও পড়ুন: জলে ডুবে মৃত্য়ু, ত্রিকোণ প্রেমের বলি যুবক দাবি পরিবারের

উল্লেখ্য, শনিবার লরির ধাক্কায় দ্বিতীয় শ্রেণির এক ছাত্রীতে মৃত্যুতে অগ্নিগর্ভ হয়ে ওঠে বর্ধমানের বীরপুর। দুর্ঘটনার পর ঘাতক বাসটিতে আগুন ধরিয়ে দেন স্থানীয় বাসিন্দারা। পথ অবরোধ করে চলে বিক্ষোভ। এমনকী, পুলিশকর্মীদেরও একটি ঘরে বন্দী করে রাখেন বিক্ষোভকারীরা।