মাঠে চাষ করার জন্য ট্রাক্টর চালাচ্ছিল বছর চৌদ্দর কিশোর অভিজিৎ ঘোষ। অভিযোগ, চালকের ভুলে ট্রাক্টর চাপা পড়ে মৃত্যু হয় মহিলার। বিজেপি নেতার ছেলের এই কাণ্ড  চাপা দিতে হাজির হয়েছিলেন মন্ডল সভাপতি। সেখানে বেফাঁস মন্তব্য করায় গ্রামবাসীদের হাতে গণপ্রহারের শিকার হন মন্ডল সভাপতি সজল মাহাতো। তাঁকে কোনওভাবে অনেক চেষ্টা করে উদ্ধার করে নিয়ে যায় শালবনি থানার পুলিশ।

ঘটনাটি ঘটেছে পশ্চিম মেদিনীপুরের শালবনি থানার অন্তর্গত কুড়াজুড়িগ্রামে। ওই গ্রামের বাসিন্দা বিজেপি নেতার কিশোর ছেলে অভিজিৎ ঘোষ, এদিন গ্রামের পাশে মাঠে লাঙল করছিল ট্রাক্টর চালিয়ে। মাঠের পাশ দিয়ে যাওয়ার সময় এক মহিলা জাগর বালা মাঝি (৪৮) -কে ট্রাক্টর এর একটি অংশ টেনে নেয়। ট্রাক্টরে মহিলার শাড়ি টানা হয়েছে বুঝতে পেরে জোরে ব্রেক করলে ওই মহিলার উপরে ট্রাকটরটি উল্টে চাপা পড়ে যায়। কোনওমতে বেরিয়ে সেখান থেকে পালিয়ে যায় অভিজিৎ। ঘটনাস্থলেই মৃত্যু হয় ওই মহিলার। এলাকার লোকজন এসে পরিস্থিতি দেখে উত্তেজনা ছড়ায়। 

বিজেপি নেতার কিশোর ছেলের অনভ্যস্ত হাতে ট্রাক্টর চালানোর কারণে এই ঘটনা ঘটেছে বলে দাবি করে স্থানীয়রা। উপযুক্ত ক্ষতিপূরণের ও শাস্তির দাবিতে দেহ মাঠেই ফেলে রাখে। বিষয়টি মিটমাট করে নেওয়ার জন্য হাজির হয় স্থানীয় বিজেপির উত্তর মন্ডলের সভাপতি সজল মাহাতো। স্থানীয়দের অভিযোগ, তিনি-বিষয়টি ছোটখাটো ব্যাপার বলে উত্তেজনাপূর্ণ মন্তব্য করেন। তারপরই উত্তেজিত পরিবারের লোকজন ও গ্রামবাসীরা গণপ্রহার শুরু করে। সেই মুহূর্তে সেখানে হাজির হয়ে গিয়েছিল শালবনি থানার পুলিশ। কোনওভাবে তাঁকে উদ্ধার করে নিয়ে যায়।তবে ততক্ষণে গ্রামবাসীরা বেধড়ক প্রহার করেছে ওই বিজেপি নেতাকে। পরে গ্রামবাসীদের বুঝিয়ে দেহ উদ্ধার করে নিয়ে যায় পুলিশ।