কলকাতায় চাকরির নামে প্রতারণাচক্রের পর্দাফাঁস করল পুলিশ। এই ঘটনায় পুলিশের জালে ধরা পড়ল প্রতারণাচক্রের ২ জন। সূত্রের খবর, শহরের নামি সরকারি হাসপাতালে চাকরি দেওয়ার নাম করে বহুদিন ধরেই চলছিল এই প্রতারণা। মালদার বাসিন্দা স্বরূপানন্দ রায়ের কাছ থেকে অভিযোগ পেয়েই তদন্তে নামে পুলিশ। এই মুহূর্তে ধৃতদেরকে দফায় দফায় জেরা করছে পুলিশ। 

আরও পড়ুন, মারুতি সার্ভিস সেন্টারে বিধ্বংসী আগুন, ঘটনাস্থলে ছুটে এলেন মিমি


সূত্রের খবর,মালদার বাসিন্দা স্বরূপানন্দ রায়ের কাছ থেকে অভিযোগ পেয়েই তদন্তে নামে পুলিশ। শুরু হয় খোঁজ। জানা গিয়েছে, চাকরি দেওয়ার নাম করে বেশ কয়েকজন যুবকের থেকে অন্তত আড়াই লক্ষ টাকা হাতিয়েছে ওই চক্র। গত বৃহস্পতিবার এসএসকেএম হাসপাতাল থেকে পার্থ নাথ সরকার ও নিত্যগোপাল রায় নামে চক্রের দুই পাণ্ডাকে গ্রেফতার করে ভবানীপুর থানা।

আরও পড়ুন, ফের শহরে ব্যাঙ্কের লকার থেকে গায়েব গয়না, তদন্তে কলকাতা পুলিশ


এর আগেও চাকরির নামে ১০০ জনেরও বেশি প্রার্থীকে  তিন কোটি টাকা প্রতারণায়  ৮ জনকে গ্রেফতার করেছিল কলকাতা পুলিশ।  পঞ্চসায়র থানায় দায়ের হওয়া একটি অভিযোগের ভিত্তিতে তদন্তে নেমে এই প্রতারণা চক্রটির সন্ধান পায় কলকাতা পুলিশ। প্রতারণার জাল সল্টলেকের বিকাশ ভবন পর্যন্ত ছড়ানো ছিল। তদন্তকারীদের অনুমান ছিল, এই চক্রের সঙ্গে আরও অনেকে যুক্ত রয়েছে। তাদের সন্ধানেও রাজ্যের বিভিন্ন জায়গায় তল্লাশি চালাচ্ছেন তদন্তকারীরা। মালদহের এক মহিলার অভিযোগে জানিয়েছিলেন , ২০১১ সালে চাকরি পাইয়ে দেওয়ার নামে তাঁর কাছ থেকে টাকা নেওয়া হয়।অভিযুক্তরা দীর্ঘ দিন ধরে তাঁকে চাকরি হবার আশা দেখিয়েছে। কিন্তু শেষ অবধি সেই চাকরি মেলেনি।  এই ঘটনায় তদন্তে নেমে পুলিশ কালীঘাট, সল্টলেক, বোড়াল, বারুইপুর, কেশপুর, তালড্যাংরা, বালুরঘাট, সন্তোষপুরে তল্লাশি চালিয়ে আট জনকে গ্রেফতার করে। ধৃতদের মধ্যে এক জন স্কুল শিক্ষক এবং অধ্যাপকও রয়েছেন। 

আরও পড়ুন, প্রশ্নপত্র ফাঁসের 'হ্যাটট্রিক', এবার পরীক্ষা শুরুর আগেই হোয়াটসঅ্যাপে মিলল ভূগোলের পেপার