গ্রেফতারের ঠিক দশ মাসের মাথায় জামিন পেলেন অনিন্দিতা পাল দে। কলকাতা হাইকোর্টের আইনজীবী রজত দে-কে খুনের ঘটনায়  গত পয়লা ডিসেম্বর তাকে গ্রেফতার করেছিল পুলিশ। বারাসত আদালতের ফাস্ট  ট্র্যাক থার্ড কোর্টে  মঙ্গলবার তার জামিনের প্রয়োজনীয় কাগজপত্র পেশ করা হয়। তবে সুপ্রিম কোর্টে আগেই অনিন্দিতার  জামিনের নির্দেশ মিলেছিল। তবে নিম্ন আদালত থেকে জামিন দেওয়ার নির্দেশ দিয়েছিল সর্বোচ্চ আদালত। 

গত বছর ২৬ নভেম্বর নিউটাউনের বিবি ব্লকের এক আবাসনের ফ্ল্যাট থেকে উদ্ধার হয় কলকাতা হাইকোর্টের আইনজীবী রজত দের দেহ। নিউটাউন থানা প্রথমে অস্বাভাবিক মৃত্যুর মামলা রুজু করে। মামলা এগোতেই  স্ত্রী অনিন্দিতা পাল দের কথায় অসঙ্গতি ধরা পড়তে থাকে।  প্রথমে অনিন্দিতা জানিয়েছিলেন, ঘটনার দিন তিনি স্বামীকে অচৈতন্য অবস্থায় দেখতে পান। গায়ে হাত দিয়ে ডাকার পর পড়ে যান রজত। পরে বয়ান বদলে তিনি বলেন, বিছানার চাদর গলায় জড়িয়ে আত্মঘাতী হয়েছেন রজত। অনিন্দিতা একাধিকবার বয়ান বদল করায় ধন্ধে পড়েন তদন্তকারীরা। এরই মাঝে ময়নাতদন্তের প্রাথমিক রিপোর্ট পুলিশের হাতে আসতেই ১৮০ ডিগ্রি ঘুরে যায় মামলার মোড়। মৃতের গলায় সরু  দাগ পাওয়া গিয়েছে বলে জানা যায় ময়নাতদন্তের রিপোর্টে। ঘটনাস্থলে যায় ফরেন্সিক টিম। শেষ পর্যন্ত পুলিশি জেরায় ভেঙে পড়েন অনিন্দিতা। স্বামীকে খুনের ঘটনায়  গ্রেফতার করা হয় তাকে। যদিও এদিন জামিন পাওয়ার পর নিজেকে নির্দোষ বলে দাবি করেন অনিন্দিতা।

এরআগে কলকাতা হাইকোর্টে অনিন্দিতার জামিনের আবেদন নাকচ হয়েছে। তবে এবার ৫০ হাজার টাকার ব্যক্তিগত বন্ডে তার জামিন মঞ্জুর হয়েছে। আপাতত আনিন্দিতা জামিন পেলেও রজতের মৃত্যুর মামলাটি  আদালতে যেমন চলছে তেমনি চলবে বলে জানিয়েছেন  অনিন্দিতার আইনজীবী।