ফের মঞ্চে একসঙ্গে দেখা যেতে পারে মোদী-মমতাকে। রাজ্য়ের এক অনুষ্ঠানে তাঁদের আমন্ত্রণ জানানো হবে। সিএএ বিতর্ক নিয়ে রাজ্য় ছাড়ার পর একসঙ্গে দেখা যেতে পারে দুই যুযুধান প্রতিপক্ষকে। 

কোন মাপকাঠিতে দেশের সেরা প্রধানমন্ত্রী, মোদী প্রশ্নে 'জর্জরিত' বেলুড়

তিনি চলে গেলেও রেশ রেখে গেছেন। প্রধানমন্ত্রীর কলকাতা সফরের পরও এখন তাঁকে নিয়ে বিতর্ক হয়েই চলেছে। বেলুড় মঠের মঞ্চে সিএএ নিয়ে বক্তব্য় রাখায় ধর্মীয় প্রতিষ্ঠানের অরাজনৈতিক ভূমিকা নিয়ে প্রশ্ন তুলেছেন অনেকেই। তবে এসবের উত্তর না দিলেও  মোদীকে ঘরের ছেলে  বলে সম্বোধন করেন মঠের সাধারণ সম্পাদক সুবীরানন্দ মহারাজ। তিনি বলেন,' বেলুর মঠে তিনি এসেছেন । এটা ঘরের ছেলের ঘরে ফেরার মতো। এটা সত্যি কথা। কিন্তু প্রাতিষ্ঠানিকভাবে তিনি দেশের প্রধানমন্ত্রী। তিনি আমাদের সম্মানীয় অতিথি। এটা অত্যন্ত গর্বের বিষয়, যে ১২০ কোটির দেশের প্রধানমন্ত্রী বলছেন, আমি এই প্রতিষ্ঠানে যেতে চাই ও রাত কাটাতে চাই। সেখানে অতিথি হিসাবে কোনও তিনি যদি কিছু বলেন, তা নিয়ে হোস্টদের কোনও নেতিবাচক টিপ্পনি করা উচিত নয়। এটাই ভারতীয় সংস্কৃতি।'

'বিষ ছড়ানো নেতারা ঘরে', কাশ্মীর নিয়ে দিদিকে পাল্টা বাবুলের

এই বলেই অবশ্য় থেমে থাকেননি মঠের সাধারণ সম্পাদক। তাঁর মতে, প্রধানমন্ত্রী বক্তব্য় রাখার সময় তিনি তো আর কানে কানে ফিসফিসিয়ে কথা বলতে পারেন না। ১১৫ বছর ধরে বেলুড় মঠ যে জায়গায় ছিল, আগামী দিনেও সেই-জায়গাতেই অরাজনৈতিক প্রতিষ্ঠান হিসেবে থাকবে। সূত্রের খবর,এতকিছুর মধ্য়েও ফের মোদীকে বেলুড় মঠে আসার নিমন্ত্রণ জানানোর পরিকল্পনা করছে কর্তৃপক্ষ। চলতি বছরের মে মাসে মঠ ও মিশনের পঞ্চদশ অধ্যক্ষ স্বামী আত্মস্থানন্দের  জন্মশতবার্ষিকী। সেখানে প্রধানমন্ত্রীর পাশাপাশি মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কে আমন্ত্রণ জানানোর পরিকল্পনা রয়েছে বেলুড় মঠের।