বাংলা দখলের লক্ষ্যে এখন থেকে ঘাম ঝরাতে শুরু করে দিয়েছে ভারতীয় জনতা পার্টি। চলতি বছরই প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী  থেকে শুরু করে অমিত শাহ এমনকি জেপি নাড্ডাও পশ্চিমবঙ্গে একাধিক দলীয় কর্মসূচিতে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা গ্রহণ করেছেন। এবার বিজেপি রাজ্যের বিধানসভা নির্বাচনের পাঁচ মাস আগেই নির্বাচন পরিচালনার জন্য একটি দল গঠন করেছে। সেই দলের মোট সদস্য সংখ্যা ১১৭। তালিকা রয়েছে সাংসদ, বিধায়ক থেকে শুরু করে রয়েছে রাজ্য ও জেলা স্তরের নেতৃত্বের নামও। বিজেপির পক্ষ থেকে জানান হয়েছে, রাজ্যের ২৯৪টি কেন্দ্রের জন্য দিল্লি বা অন্যকোনও প্রদেশ থেকে দক্ষ নেতৃত্বকে নিয়ে আসা হবে। পাশাপাশি প্রতিটি আসনের জন্য ৪৫ জনের একটি দল করার পরিকল্পনা গ্রহণ করা হয়েছে। এই দলগুলি মূলত ভোটের সমস্ত কাজ পরিচালনা করবে। 


নির্বাচনী ম্যানেজমেন্ট দলকে মোট ৩১টি ইউনিটে ভাগ করা হয়েছে। ইউনিটগুলির মূল কাজ হবে দলের প্রতিটি স্তরের সঙ্গে সমন্বয় তৈরি করা, তথ্য সংগ্রহ করা।  বুথ ভিত্তিক কাজ করবে ওই দলগুলি। পাশাপাশি সোশ্যাল মিডিয়ায় পরিচালনার ক্ষেত্রেও দলটির একটি গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা থাকবে। বিজেপির পক্ষ থেকে জানান হয়েছে প্রতিটি সেলেও গুরুত্ব দেওয়া হয়েছে রাজ্যস্তরের নেতাদের। সাংসদ ও বিধায়করা তাঁদের সঙ্গে যোগাযোগ করে কাজকরবে। তবে কয়েকটি সেলে একজন মাত্র রাজ্য়স্তরের নেতৃত্ব রয়েছেন। প্রতিটি সেলের মাথায় একজন প্রবীন কর্মীকে ইনচার্জ হিসেবে রাখা হয়েছে। ইস্তাহার কমিটিতে রয়েছে স্বপন দাশগুপ্ত ও অনুপম হাজরার নাম। আর এমপি প্রভাস-এর দায়িত্ব রয়েছেন লকেট চট্টোপাধ্যায়। 

গত লোকসভা নির্বাচনে দুর্দান্ত ফল করেছিল বিজেপি। রাজ্যের ৪২টি লোকসভা কেন্দ্রের মধ্যেই ১৮টি জয় পেয়েছিল গুরুয়া শিবির। যা তুমুলভাবে উদ্বেগ বাড়িয়েছিল তৃণমূল কংগ্রেসের। আর সেখান থেকেই অক্সিজেন পেয়ে আগামী আসন্ন বিধানসভা নির্বাচনে জয় পেতে মরিয়া চেষ্টা করছে গেরুয়া শিবির। তবে এই ম্যানেজমেন্ট টিম মূলত বিজেপির ভোট কুশলী অমিত শাহর নেতৃত্বে কাজ করবে। বিজেপির সর্বভারতীয় সভাপতি জেপি নাড্ডার সঙ্গেও যোগাযোগ রাখতে ইউনিটের প্রধানরা।