আত্মগোপন করে থাকার সময়ে ভিডিও বার্তা দিয়েছেন একাধিকবার। এখনও তাঁকে হন্যে হয়ে খুঁজছে সিআইডি-সহ রাজ্যের একাধিক তদন্তকারীরা। তিন বছর পর অবশেষে প্রকাশ্য়ে এলেন বিমল গুরুং। তাঁকে দেখা গেল সল্টেলেকে, গোর্খা ভবনের সামনে।

আরও পড়ুন: STF-এর জোড়া অভিযানে বড়সড় সাফল্য, কলকাতায় উদ্ধার বন্দুক-দেড় কোটি টাকা

ঘটনাটি ঠিক কী? দার্জিলিং-এ নয়, সল্টেলেকের গোর্খা ভবনে সাংবাদিক সম্মেলন করতে চেয়েছিলেন বিমল গুরু। হোয়াটসঅ্যাপ মারফৎ সাংবাদিকদের গোর্খা ভবনে হাজির থাকতে বলা হয়েছিলেন বুধবার বিকেল পাঁচটায়। বিকেল চারটে নাগাদ সাদা গাড়িতে চেপে চলে আসেন গুরুং নিজেও। কিন্তু গোর্খা ভবনের দরজা খুলতে রাজ হয়নি কর্তৃপক্ষ। কেন? সাফ জানিয়ে দেওয়া হয়, কোনও রাজনৈতিক দলের প্রতিনিধিকে সাংবাদিক সম্মেলন করতে দেওয়া হবে না। চল্লিশ মিনিট বাইরে অপেক্ষা করার পর শেষপর্যন্ত গাড়ি ঘুরিয়ে ফের কলকাতার দিকে চলে যান বিমল গুরুং।

আরও পড়ুন: প্রবল বিস্ফোরণে উড়ল দাতব্য চিকিৎসাকেন্দ্রের একাংশ, পুজোর মুখে আতঙ্ক ছড়াল বীরভূমে

উল্লেখ্য, তখন তিনি গোর্খা জনমুক্তির মোর্চার সর্বোচ্চ নেতা। ২০১৭ সালে দার্জিলিং-এ অশান্তির পর বিমল গুরুং-এর বিরুদ্ধে রাষ্ট্রদ্রোহিতার অভিযোগে মামলা রুজু করে পুলিশ। পাহাড়ে অশান্ত চলাকালীন খুন হয়ে যান পুলিশকর্মী অমিতাভ মালিক। সেই ঘটনায়ও মূল অভিযুক্ত গুরুং। কিন্তু ঘটনা হল, গত তিন বছর ধরে বহু খোঁজাখুঁজি করেও তাঁর হদিশ পাননি সিআইডি-সহ রাজ্যের একাধিক তদন্তকারী সংস্থার আধিকারিকরা। এরইমধ্যে আবার দিল্লিতে কেন্দ্রীয় মন্ত্রী ও  বিজেপি নেতা জেপি নাড্ডার ছেলের বিয়ের অনুষ্ঠানে গুরুং ছবি প্রকাশ্যে আসে।  বুধবার সল্টেলেকে গোর্খা ভবনের সামনে গাড়িতে বিমল গুরুং-এর পাশে গেরুয়া পোশাক পরা এক ব্যক্তিকে বসে থাকতে দেখা যায়। কে তিনি? নাম-পরিচয় জানা যায়নি।